আজ : ০৮:২৪, জানুয়ারি ২৫ , ২০২০, ১২ মাঘ, ১৪২৬
শিরোনাম :

ব্রিটেনে অবৈধভাবে প্রবেশের কারনে গত ৩ বছরে ২৭ হাজার গ্রেফতার


আপডেট:১২:৫৬, অগাস্ট ৩০ , ২০১৬
photo

লন্ডনবিডিনিউজ২৪: ব্রিটেনে গত ৩ বছরে অবৈধভাবে প্রবেশের কারনে ২৭ হাজারের বেশি মানুষকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বিবিসি জানিয়েছে তারা ইংল্যান্ড, ওয়েলস ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের ৩৯জন পুলিশ সদস্যের কাছ থেকে এই পরিসংখ্যান পেয়েছে। এতে দেখাগেছে গত ২০১৩ সাল থেকে ২০১৫ পর্যন্ত গ্রেফতারের সংখ্যা ২৫ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। তাদের বেশিরভাগকে গ্রেফতার করা হয়েছে মটরওয়েতে, সার্ভিস স্টেশনে, ট্রাক স্টপ ও লরিতে লুকিয়ে থাকা অবস্থায়।


হোম অফিস বলেছে অবৈধ অভিবাসী আগমন বন্ধে তারা দীর্ঘ মেয়াদী সমাধান চেয়েছিল। বিবিসি বলছে স্কটল্যান্ড পুলিশ তাদের তথ্য প্রদান করেনি তাই এ তথ্য শুধু আংশিক।


হাউজ অব কমন্সের হোম অফিস সিলেক্ট কমিটির চেয়ারম্যান কিথভাজ এমপি জরুরী সমাধানের আহবান জানিয়েছেন, যখন সাবেক স্পেশাল ব্রাঞ্চ পোর্ট অফিসার ক্রিস হবস ভয়াবহ পরিসংখ্যান দিয়েছেন।


বিবিসি হোম অফিস সংবাদদাতা ড্যানি শ বলেন, রিপোর্টে ব্যাপকভাবে সীমান্তে অবৈধ অভিবাসী আগমন বৃদ্ধির তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এই তথ্য ফ্রিডম অফ ইনফরমেশন থেকে প্রাপ্ত। এতে দেখা গেছে ২০১৩ সালে অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য ৭হাজার ৭শ ৯জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর পরের বছর আটক কর হয় ৭হাজার ৯শ ১৩জনকে এবং তার পরের বছর ৯হাজার ৬শজনকে। এদের গ্রেফতার করা হয়েছে এমন সময় যখন ইউরোপের প্রতিটি দেশ রিফিউজি সমস্যায় ভোগছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ২০১৩ সালের জানুয়ারী থেকে এ বছরের এপ্রিল পর্যন্ত গ্রেফতার করা হয়েছে ২৭হাজার ৮শ মনুষকে।


এই পরিসংখ্যানে যারা দীর্ঘদিন যাবত ভিসার মেয়াদ উর্ত্তীন হয়ে গ্রেফতার হয়েছেন ও বিমানবন্দর গুলি থেকে আটক হয়েছেন তাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।


এদিকে এফওআই এর দেয়া আরেক তথ্যে দেখাগেছে ইউরো চ্যানেল জুড়ে ২০১৩ সাল থেকে ফ্রান্স, বেলজিয়া ও নেদারল্যান্ড বন্দরের কর্মকর্তাদের কারনে যুক্তরাজ্যে অবৈধভাবে প্রবেশের জন্য ১লাখ ৪৫হাজার ১শ ৫৭জনক বাঁধা প্রাপ্ত হয়েছেন।
বিস্তারিত আসছে---



সাম্প্রতিক খবর

বৃটেনে ইমিগ্রশন আইন শিথিল

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : বিদেশি কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে বছরে ৩০ হাজার পাউন্ড বেতন দেওয়ার যে শর্ত রয়েছে, সেটি বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। বরিস জনসন বলেন, ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ের জন্য সরকার যে অভিবাসন নীতি প্রণয়ন করতে যাচ্ছে, আয়ের ওই শর্ত তার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়।

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment