আজ : ০৬:১১, সেপ্টেম্বর ১৭ , ২০১৯, ২ আশ্বিন, ১৪২৬
শিরোনাম :

উদীচী নিয়ে বিভ্রান্ত সৃষ্টি না করার আহবান


আপডেট:১১:৫৫, অক্টোবর ২৮ , ২০১৫
photo

লন্ডনবিডিনিউজ২৪: নিজেদের উদীচীর নেতৃবৃন্দ দাবি করে একটি মহল উদীচী নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এমন কি উদীচীর নামে বিভিন্নভাবে অর্থ সংগ্রহ করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ। গত ২৭ অক্টোবর ব্রিক লেইনের একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ তোলে বলা হয়, ‘উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী যুক্তরাজ্য’ একটি অলাভজনক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান। এটি ব্রিটেনের আইনে রেজিস্ট্রিকৃত। যার চ্যারিটি নং- ১০৫৯০১৬ এবং কোম্পানি লিমিটেড নং-০৩২৬০৮৪৪। উদীচীর নাম ও লগো প্যাটেন্ট করা আছে। ফলে ব্রিটেনের আইন অনুযায়ী অন্য কারো এই নাম ব্যবহারের সুযোগ নেই।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, উদীচী গত ১০ অক্টোবর পূর্ব লন্ডনের ব্রাডি আর্টস সেন্টারে পালন করে বর্ণাঢ্য রজত জয়ন্তী উৎসব। কিন্তু সফল এই রজত জয়ন্তী উৎসবের পর পরই সংগঠনের নাম ব্যবহার করে ‘উদীচীর ২৬ বছর পূর্তি’ শীর্ষক আরেকটি আরেকটি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠান আয়োজনের চেষ্টা করা হচ্ছে। এই তৎপরতা সম্পর্ণ বেআইনী।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী যুক্তরাজ্যের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, দিলু নাসেরসহ নেত্রীবৃন্দ

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, যুক্তরাজ্যে ১৯৮৯ সালে শিল্পী লুসি রহমানকে সভাপতি, ড. কুদরত-উল-ইসলামকে সহ-সভাপতি, সৈয়দ বেলাল আহমদকে সাধারণ সম্পাদক, গোলাম মোস্তফাকে সহ-সাধারণ সম্পাদক, দিলু নাসের, উর্মি মাযহারকে সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য করে একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের মাধ্যমে প্রবাসে বাংলা সংস্কৃতি প্রচার, প্রসার ও বিকাশের লক্ষ্যে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী যুক্তরাজ্য কার্যক্রম শুরু করে। সেই থেকে প্রতি দুই বছর অন্তর কেন্দ্রিয় কমিটির নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে এবং ব্রিটেনের আইন অনুযায়ী (চ্যারিটি আইন) সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। যার ধারাবাহিকতায় উদীচী প্রবাসে ব্যাপক সফলতার স্বাক্ষর রেখেছে এবং অতিবাহিত করেছে গৌরবের ২৬ বছর। এই সফলতার স্বীকৃতি স্বরূপ সংস্কৃতি কাজের জন্য উদীচী পেয়েছে টাওয়ার হ্যামলেট্স বারা কাউন্সেলের সর্বোচ্চ পুরষ্কার, লন্ডন মেয়র পদকসহ নানা সম্মাননা।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২০০৬ সালের ৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী যুক্তরাজ্য শাখার সপ্তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সে সম্মেলনে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর কেন্দ্রিয় কমিটির সহ সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন। সপ্তম সম্মেলনে গঠিত উদীচী যুক্তরাজ্য শাখার কমিটিকে উদীচী কেন্দ্রিয় কমিটি ২০০৭ সালের ১১ ফেব্রুযারি অনুমোদন প্রদান করে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানানো যাচ্ছে যে, উদীচী যুক্তরাজ্য শাখা ব্রিটেনের আইনের আওতায় ‘কোম্পানি হাউজে’ স্বেচ্ছাসেবী অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে বের হয়ে না আসার কারণে তৎকালীন কেন্দ্রিয় সংসদের সাধারণ সম্পাদকের চিঠির মাধ্যমে অগঠনতান্ত্রিক এবং অগণতান্ত্রিকভাবে কমিটি ভেঙ্গে দেওয়া হয়। যা কোনোভাবেই উদীচী কেন্দ্রিয় সংসদের গঠনতন্ত্র অনুমোদন করেনা এবং বিশেষ করে বিদেশের শাখা সমূহের জন্য প্রযোজ্য নয়। উদীচীর বিদেশ শাখা সমূহ যেমন উদীচী যুক্তরাজ্য, ফ্রন্স সকল শাখাই সে দেশের আইন অনুযায়ী রেজিস্ট্রিকৃত সংগঠন। ঠিক একইভাবে যুক্তরাজ্য উদীচী আইনগতভাবে একটি রেজিস্ট্রিকৃত অলাভজনক এবং চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশ উদীচী কেন্দ্রিয় কমিটিকে, উদীচী যুক্তরাজ্য জেলা কমিটি ভেঙ্গে দেওয়ার সিন্দান্তটি পূণঃবিবেচনায় নেওয়ার আহবান জানায়। সে ব্যাপারে কেন্দ্রিয় কমিটি কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেনি। বিষয়টি আদালতে গড়ালে (হাইকোর্ট, জেলা জজ ২০০৭ নং ২২৬) ২০১৩ সালের ২২ জানুয়ারি বিচারক উদীচী যুক্তরাজ্য জেলা কমিটি ভেঙ্গে দেওয়ার চিঠিকে অবৈধ ও বেআইনী ঘোষণা করেন এবং উদীচী যুক্তরাজ্য শাখার পক্ষে রায় দেন।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, উদীচী কেন্দ্রিয় সংসদ ও উদীচী যুক্তরাজ্য জেলা সংসদের মধ্যে আদর্শগত কোনো বিরোধ নেই। এটি কেবল গঠনতান্ত্রিক ব্যাখা এবং বিরোধ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, আদালতের রায়ের পরও দুরত্ব ঘোচানোর জন্য যুক্তরাজ্য উদীচীর সভাপতি গোলাম মোস্তফা ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতি সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রবাসে বাংলা সংস্কৃতিতে বিভাজন নিরসন করে একযোগে কাজ করার অনুরোধ জানান। বিষয়টি নিরসনের চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দেয়া সত্ত্বেও তিনি উদীচী যুক্তরাজ্যের রজত জয়ন্তী উৎসব সম্পন্ন হওয়ার পর আরেকটি গোষ্ঠরি আমন্ত্রণে উদীচীর ব্যানারে আরেকটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘একটি গোষ্ঠী যারা কোন সময়ই উদীচীর সদস্যপদ গ্রহণ করেনি যারা ১৯১০ সালে সত্যেন সেন স্কুল অব পারফর্মিং আটর্স নামে একটি সংগঠন করেছেন (চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশন নং -১১৩১১৭৫)। যেহেতু তারা আইনগত ভাবে ব্রিটেনে উদীচীর নাম ব্যবহার করতে পরবে না তাই অন্য নামে চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশন নিয়েছেন। তবে মাঝে মধ্যে এই গোষ্ঠী উদীচীর নাম ব্যবহার করে কমিউনিটিতে বিভ্রান্তি ও অপপ্রচার চালাচ্ছে’।

গত ১০ অক্টোবর উদীচীর রজত জয়ন্তী উৎসবের বর্ণাঢ্য আয়োজনের বর্ণনা দিয়ে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, উৎসবের কর্মসূচির মধ্যে ছিল গৌরবের ২৫ বছরের কার্যক্রমের উপর ভিত্তি করে প্রকাশনা, তথ্য চিত্র ও স্থির চিত্র প্রদর্শনী, শিশু-কিশোরদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, উদীচী এবং বিলেতের খ্যাতিমান শিল্পীদের পরিবেশনায় গণসঙ্গীত গীতি আলোখ্য (সঙ্গীত-নৃত্য-আবৃত্তি) ‘আমরা মানুষের গান গাই’। এ ছাড়াও শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি, মিডিয়া এবং কমিউনিটিতে বিশেষ অবদানের জন্য সম্মাননা প্রদান। যাঁদেরকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয় তাঁরা হচ্ছেন, বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও সাংবাদিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী (আজীবন সম্মাননা), গণসঙ্গীত শিল্পী-সুরকার শেখ লুৎফুর রহমান (মরণোত্তর), শিল্পী লুসি রহমান (প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি), সৈয়দ সামাদুল হক (মিডিয়া), সাপ্তাহিক জনমত (সংবাদপত্র), রেজা আহমদ ফয়সল চৌধুরী সোয়েভ (মিডিয়া), মাহমুদুর রহমান বেনু ও হিমাংশু গোস্বামী (সঙ্গীত), দিলু নাসের (কবিতা-ছড়া), সালেহা চৌধুরী (সাহিত্য), সৌমি দাস (নৃত্য), কাউন্সিলার রহিমা রহমান (কমিউনিটি) গোলাম মোস্তফা (সফল সভাপতি)। এ ছাড়াও শিল্পী আলাউর রহমান, চায়না চৌধুরী, ফারজানা সিফাত স্বপ্না, অদিতি রায়, অনুস্মিতা সাহা, সাদিয়া আফরোজ চৌধুরী, তারানা রউফ কান্তা, শ্রীপর্ণা দেব সরকারকে দেওয়া হয় উদীচী স্কুলে পর্যায়ক্রমে দায়িত্বকালীন শিক্ষকতা সম্মাননা। সাথে সাথে উদীচীর বর্তমান সহ-সভাপতি কবি গোলাম কবিরকে বাংলাদেশ উদীচীর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সম্মাননা প্রদান করা হয়। উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোহাম্মদ আবদুল হান্নান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, টাওয়ার হ্যামলেট্স বারা কাউন্সিলের নির্বাহী মেয়র জন বিগস, ডেপুটি মেয়র সিরাজুল ইসলাম, স্পিকার আবদুল মুকিত চুন্নু এমবিই, সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা প্রবীন সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী এবং শিল্পী লুসি রহমান। উদীচীর রজত জয়ন্তী উৎসব শিল্পী, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে হয়ে ওঠে সংস্কৃতি প্রেমিদের এক মিলন মেলা।
এ পর্যন্ত কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ যারা উদীচী যুক্তরাজ্য সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে সম্মেলনকে সফল করেছেন তারা হলেন, সৈয়দ হাসান ইমাম (সভাপতি), অধ্যাপক যতীন সরকার (সভাপতি), গোলাম মোহাম্মদ ইদু (সহ-সভাপতি) মাহমুদ সেলিম (সাধারণ সম্পাদক), হাবিবুল আলম খান (সাধারণ সম্পাদক), অলক দাস গুপ্ত (কোষাধ্যক্ষ), তিমির নন্দী (কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য), শামীম চৌধুরী (সহ-সাধারণ সম্পাদক), মঞ্জুরুল আহসান খান (সভাপতি, সিপিবি) মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম (প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক বর্তমান সভাপতি সিপিবি), অধ্যাপক এম এম আকাশ (উপদেস্টা উদীচী, প্রেসিডিয়াম সদস্য সিপিবি) রুহিন হোসেন প্রিন্স (সিপিবি), ড. গোলাম মহিউদ্দিন (উপদেস্টা, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম সংগঠন কবি বেলাল মোহাম্মদ (উপদেস্টা) প্রমুখ।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘যেহেতু ব্রিটেনের আইন অনুযায়ী উদীচী যুক্তরাজ্য একমাত্র সংগঠন এবং বাংলাদেশের হাইকোর্টের উদীচী কমিটির প্রতি স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী ব্রিটেনে আমরাই বৈধ সংগঠন এবং কেন্দ্রিয় কমিটি ব্রিটেনে আমাদের বৈধ কমিটি থাকা অবস্থায় অন্য কোন শাখা করতে পারবেনা বা আমাদের কার্যক্রমে বাধা সৃষ্টি করতে পারবেনা সেহেতু আমরাই পরিষ্কার করে বলতে চাই আমাদের উদীচী ব্যতিত উদীচীর অন্য কোন শাখা নেই এবং কারো উদীচীর নাম ব্যবহার করার অধিকার নেই’।
তাঁরা উদীচীর আদর্শ বুকে ধারন করে বিলাতের আইন অনুযায়ী বাংলা সংস্কৃতির বিকাশে তথা বাঙালি



সাম্প্রতিক খবর

লন্ডনে সফল ভাবে সম্পন্ন হলো গোলাপগঞ্জ উৎসব

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ঃ দীর্ঘ তিন মাসের অক্লান্ত পরিশ্রম ও প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে ১৫ সেপ্টেম্বর রোববার সফল ভাবে সম্পন্ন হলো গোলাপগঞ্জ উৎসব যুক্তরাজ্য-২০১৯। ব্রিটেনের ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো প্রায় ৫০টির মতো সংগঠন ও বিলেতের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার গোলাপগঞ্জবাসীদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে উৎসব মুখর পরিবেশে পূর্ব লন্ডনের ঐতিহাসিক ব্রাডি আর্ট সেন্টারে উৎসবটি সম্পন্ন হয়। পূর্ব

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment