আজ : ০৯:১৮, ফেব্রুয়ারি ২৫ , ২০১৮, ১৩ ফাল্গুন, ১৪২৪
শিরোনাম :

রোহিঙ্গা হত্যায় সু চিকে ফোন করে ট্রুডোর উদ্বেগ


আপডেট:১২:৪৭, সেপ্টেম্বর ১৪ , ২০১৭
photo

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিম ও অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকদের ওপর হামলা এবং তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। বুধবার মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর ও দেশটির ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী অং সান সু চিকে ফোন করে তিনি এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী রাখাইনের চলমান সঙ্কট নিরসনে শান্তিতে নোবেল বিজয়ী সু চিকে তার নৈতিক অবস্থান ব্যবহারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। খবর: হাফিংটন পোস্টের।
২০০৭ সালে কানাডা সু চিকে যে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব প্রদান করেছিল, ট্রুডো ফোনের মাধ্যমে যেন সে কথাটি স্মরণ করিয়ে দিলেন।
কারণ মিয়ানমারের জান্তা সরকার যখন সু চির ওপর বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছিল, তখন তাকে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব দেয় অটোয়া।
ফোনালাপের পর কানাডার প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চলমান সহিংসতা বন্ধ এবং বেসামরিক লোকদের রক্ষায় মিয়ানমারের সামরিক ও বেসামরিক নেতাদের প্রতি জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ট্রুডো।
সেইসঙ্গে জাতিসংঘ ও মানবাধিকার সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিদের দেশটিতে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়ারও আহ্বান জানান তিনি।
সু চিকে কানাডার সরকারপ্রধান সকল সংখ্যালঘুর অধিকার রক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন। সেইসঙ্গে শান্তিপূর্ণ ও স্থিতিশীল মিয়ানমার গড়তে সহযোগিতার আশ্বাসও দেন ট্রুডো।
এর আগে কানাডার গ্রিন পার্টির প্রধান এলিজাবেথ মে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংসতা এবং উদ্দেশ্যমূলকভাবে মাইন পুঁতে রাখার কড়া সমালোচনা করেন।
তিনি বলেন, ‘মিয়ানমার সরকারের নিরবতাই প্রমাণ করে, তারা ভয়ঙ্কর সহিংসতার পক্ষে।’
এছাড়া রোহিঙ্গা ইস্যুতে চলতি সপ্তাহের শুরুতে কানাডার নিউ ডেমোক্রেট দলীয় দুই সদস্য সু চি সরকারের কড়া সমালোচনা করেন। হেলেন লাভেরডিয়ের ও চেরিল হার্ডক্যাসল নামের ওই সদস্যরা বলেন, ‘সু চির ভূমিকা অগ্রহণযোগ্য এবং সম্পূর্ণ হতাশাজনক।’
খবরে বলা হয়েছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও দেশটির সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধদের হামলার শিকার হয়ে ইতোমধ্যে ৩ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে।
এছাড়া হামলা, বাড়ি-ঘরে আগুন এবং নদী পাড়ি দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় কয়েকশ’ রোহিঙ্গা মারা গেছে।
এমন পরিস্থিতিতে সু চি সরকারের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে। কিন্তু, সু চি বলছেন, তার সরকার ‘বিদ্রোহী’দের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। এমনকি চলতি মাসে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে যোগ না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।



সাম্প্রতিক খবর

মানুষের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দান শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

photo শিহাবুজ্জামান কামাল; গত ২২ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার পূর্ব লন্ডনের এলএমসি হলে মানুষের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। বিশিষ্ট টিভি ব্যক্তিত্ব আজমল মাসরুরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে মানুষের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান ও উপকারিতা সম্পর্কে অবহিত করতে এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। মানুষের দানকৃত প্রয়োজনীয় অর্গান প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে শতশত অসুস্থ মানুষের জীবন বাচানো

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment