আজ : ১২:৪০, ফেব্রুয়ারি ২৫ , ২০২০, ১৩ ফাল্গুন, ১৪২৬
শিরোনাম :

বৃটিশ পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট ভোট স্থগিত


আপডেট:০৫:৪০, ডিসেম্বর ১১ , ২০১৮
photo

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভয়াবহভাবে পরাজিত হওয়ার মুখে বৃটিশ পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট ভোট স্থগিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। ব্রেক্সিট ইস্যুতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে যে চুক্তিতে পৌঁঁছেছেন তিনি তা ভোটে দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোনো সন্দেহ নেই যে, বৃটিশ পার্লামেন্টের এমপিরা ওই চুক্তি প্রত্যাখ্যান করবেন।

কয়েক সপ্তাহ ধরে তিক্ত সমালোচনা ও পার্লামেন্টে কয়েক দিনের বিতর্কের পর এমনটাই স্পষ্ট হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে তেরেসা মে আজ ভোট স্থগিত করে বৈঠকে বসছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতা ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে। তার বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুতি এবং জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেলের সঙ্গে। তেরেসা মে বলেছেন, উত্তর আয়ারল্যান্ড সীমান্ত পরিকল্পনা নিয়ে তার আরও নিশ্চয়তা প্রয়োজন। ব্রেক্সিট ভোট নতুন কোন তারিখে হবে সে বিষয়ে তিনি স্পষ্ট কোনো বক্তব্য রাখেন নি।এ খবর দিয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস নিউজ সার্ভিস ও বিবিসি।

বহুল কাঙ্খিত ও সমালোচিত ব্রেক্সিট চুক্তি আজ মঙ্গলবার বৃটিশ পার্লামেন্টে ভোটে দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা স্থগিত করে তেরেসা মে উড়ে যাচ্ছেন ইউরোপে। এটাকে তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের জন্য একটি সঙ্কটময় বা গুরুত্বপূর্ণ সময় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। ব্রেক্সিট চুক্তির ওপর ভোট স্থগিত করে তিনি সোমবার অনির্ধারিত বক্তব্য রাখেন পার্লামেন্টে।

তাতে বলেন, আমরা যদি সামনে এগিয়ে যাই এবং মঙ্গলবার ভোট করি, তাহলে উল্লেখযোগ্য ব্যবধানে এই চুক্তিটি পরাজিত হবে। তাই আমরা মঙ্গলবারের ওই ভোট স্থগিত করছি। এই সময়ে আমরা পার্লামেন্টকে বিভক্ত করতে চাই না। তবে তার এমন সিদ্ধান্তে চেতেছেন বিরোধী লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন। তিনি বলেছেন, সব আয়োজন একতরফাভাবে সরকার নিতে পারে না। এর আগে তেরেসা মে নিয়ন্ত্রণ হারাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।

ওদিকে তেরেসা মে’র নিজ দল কনজার্ভেটিভের ব্রেক্সিটপন্থি নেতা জ্যাকব রিস-মগ কড়া সমালোচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রীর। গত মাসে তিনি প্রধানমনত্্রীর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে চিঠি দিয়েছেন। আরো এমপি যাতে একই কাজ করেন সেই চেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। যদি এমনটাই হয় তাহলে কনজার্ভেটিভ পার্টিতে নেতৃত্ব নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। দ্য টাইমস রিপোর্ট করেছে যে, সোমবার প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে চিঠি দিয়েছেন এমপি ক্রিসপিন ব্লান্ট। এ নিয়ে ২৬ জন এমপি এ কাজ করলেন। প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোট করতে প্রয়োজন ৪৮ জন এমপির এমন চিঠি।

ওদিকে ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাস্ক বলেছেন, নতুন করে কোনো দরকষাকষি করবে না ইউরোপিয় ইউনিয়ন। তবে বৃটেনকে এক্ষেত্রে সুবিধা পেতে কিভাবে সহযোগিতা করা যায় তা নিয়ে নেতারা আলোচনা করতে পারেন। এর আগে ইউরোপিয় ইউনিয়নের শীর্ষ আদালত বৃটেনকে নতুন পথ দেখিয়েছে। তারা বলেছে, লিসবন চুক্তির ৫০ অনুচ্ছেদ রদ করে বৃটেন আবার ফিরতে পারে ইউরোপিয় ইউনিয়নে। এটা তারা একতরফাভাবে করতে পারে।



সাম্প্রতিক খবর

আমার কোন ফেসবুক আইডি নেই - এম কয়সর আহমদ

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪: বাংলাদেশ জাতিয়তাবাদী দল বিএনপি যুক্তরাজ্য শাখার সাধারণ সম্পাদক এম কয়সর আহমদ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন তার নামে সোসাল মিডিয়া ফেইস বুকে বেশ কয়টি আইডি থেকে বিভ্রান্তি মূলক মিথ্যা খবর প্রচার করা হচ্ছে। তিনি নিশ্চিত করেছেন তার নামে কোন ফেসবুক আইডি বা পেইজ নেই। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ নামে বেনামে এরকম ফেসবুক আইডি খুলে আমার নামে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে তিনি মনে করেন।

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment