আজ : ০৭:৩৮, ফেব্রুয়ারি ২৫ , ২০১৮, ১৩ ফাল্গুন, ১৪২৪
শিরোনাম :

সুনামগঞ্জে হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ নিয়ে বিএনপির উদ্বেগ


আপডেট:১০:০৩, জানুয়ারি ১৪ , ২০১৮
photo

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জে হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণে ধীরগতি, নীতিমালা লঙ্ঘন করে সরকার দলীয় লোকদের লুটপাটের সুযোগ ও পানি নিষ্কাশনে কর্যকরী উদ্যোগ না নেওয়ার অভিযোগ এনে উদ্বেগ জানিয়েছে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি।

রবিবার দুপুরে জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন ও সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নূরুল স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলের পক্ষ থেকে এ উদ্বেগ জানানো হয়। সেইসাথে আগামী মৌসুমে কৃষকের ফসলের সুরক্ষায় তিন দফা দাবিও জানায় বিএনপি।

বিএনপির দাবি, গত বোরো মৌসুমে সরকারি দলের লোকদের দ্বারা হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ প্রকল্পের বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাৎ ও সীমাহীন লুটপাটের কারণে অকাল বন্যায় তলিয়ে যায় জেলার লাখো কৃষকের সারা বছরের জীবন-জীবিকার একমাত্র অবলম্বন বোরো ফসল। যার ফলে বিস্তীর্ণ হাওরপাড়ের মানুষ চরম দুর্দশায় পতিত হয়ে এখনো অনাহারে-অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছেন। তাঁদের প্রত্যাশা ছিল, আসছে মৌসুমে হাওরের ফসলের সুরক্ষায় সরকার কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করবে যাতে কৃষক তাঁদের সোনার ফসল গোলায় তুলে দুঃখ ঘুচিয়ে সংসার জীবনের অভাব অনটন দূর করতে পারেন।

সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি উদ্বেগ প্রকাশ করে জানায়, আগামী মৌসুমে হাওরের বোরো ফসল রক্ষায় সরকার ততোটা সক্রিয় ও আন্তরিক নয় যতোটা গত মৌসুমে ফসল হারানো মানুষ প্রত্যাশা ছিল। বাঁধ নির্মাণের নির্ধারিত সময় অতিক্রম করার পরও সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিভাগের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ তাদের দায়িত্ব পালনে উদাসিন, তাদের তৎপরতা অনেক ক্ষেত্রেই খামখেয়ালীপূর্ণ।

বিবৃতিতে বলা হয়, পৌষ মাসের শেষে এসেও অনেক হাওরের পানি নিষ্কাশন না হওয়ার কারণে এখনো কৃষকরা তাঁদের জমিতে বীজ বপন ও চারা রোপন করতে পারছেন না। কিন্তু এই সময়ে এসেও সংশ্লিষ্ট বিভাগের পক্ষ থেকে পানি নিষ্কাশনের কার্যকরী কোনো উদ্যোগ না নেওয়ায় এবারো বিস্তীর্ণ হাওরের বোরো আবাদ ব্যহত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

বিএনপির দাবি, বিগত বছরে শতভাগ ফসল হারানোর তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকে কৃষক সমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে হাওরে ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণে নীতিমালার আমূল পরিবর্তন আনা হয়। কিন্তু চলতি মৌসুমেও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠনের ক্ষেত্রে উদ্বেগজনকভাবে নীতিমালা পরিপন্থী কাজ করছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিগুলো হাওরের কৃষির সাথে প্রত্যক্ষভাবে সম্পৃক্ত কৃষকদের সমন্বয়ে গঠন করার কথা থাকলেও বিগত বছরের ন্যায় অবাদ লুটপাটের সুযোগ করে দিতে সরকার দলের সংসদ সদস্যদের অনুগত দলীয় লোকদের দ্বারা গঠন করা হচ্ছে। যে কারণে এবারো হাওররক্ষা বাঁধ নির্মাণে সরকারি বরাদ্দের সিংহভাগ অর্থ লুটপাট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে, যা জেলার লাখ লাখ কৃষকের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলারই নামান্তর।

বিবৃতিতে হাওরের ফসলের সুরক্ষায় তিন দফা দাবি জানিয়েছে জেলা বিএনপি। তাদের দাবিগুলো হচ্ছে, দ্রুত হাওরের পানি নিষ্কাশনের জন্য এখনই কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ, হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণে হালনাগাদ নীতিমালা শতভাগ অনুসরণপূর্বক সংসদ সদস্যদের অনুগত সরকার দলীয় লোকদের বাদ দিয়ে হাওরপাড়ের প্রকৃত কৃষকের সমন্বয়ে শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে পিআইসি গঠন এবং হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ সঠিক নিয়মে ও যথাসময়ে সম্পন্ন করা।

আগামী বোরো মৌসুমে হাওরের ফসল রক্ষায় হাওরবাসীকে সতর্ক ও সজাগ থাকার আহ্বানও জানিয়েছে জেলা বিএনপি।

Posted in সিলেট


সাম্প্রতিক খবর

নিম্ন আদালতের নথি হাইকোর্টে এলে খালেদা জিয়ার জামিনের আদেশ

photo ঢাকা প্রতিনিধি: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। নিম্ম আদালত থেকে রায়ের নথি পাওয়ার পর এ বিষয়ে আদেশ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন হাইকোর্ট। রোববার দুপুরে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এ আদেশ দেন। সংখ্যাধিক্য আইনজীবীর কারণে এজেলাশ কক্ষের পরিবেশ ‘অস্বাভাবিক’ হওয়ায়

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment