আজ : ০৩:৫০, ফেব্রুয়ারি ১৭ , ২০১৯, ৫ ফাল্গুন, ১৪২৫
শিরোনাম :

আমার ব্যক্তিগত জীবন কারও ভোগের বস্তু নয় : প্রিয়াঙ্কা


আপডেট:১০:১৫, অগাস্ট ১৯ , ২০১৮
photo

বিনোদন ডেস্ক: সাদা কুর্তা-পাজামা পড়া বিদেশি পাত্রের সামনে হলুদ কামিজে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। বাগদান অনুষ্ঠানের পর সব জল্পনার অবসান হল।

সকালে জুহুর বাড়িতে পুজাপাঠের পরে হলিউড গায়ক ও গীতিকার নিক জোনাসের সঙ্গে বাগদান সম্পন্ন হয় তার। এরপরই বিশেষ মানুষের সঙ্গে বিশেষ মুহূর্তের ছবি ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেছেন প্রিয়াঙ্কা। সকালের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রিয়াঙ্কার পরিবার ও ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধবরা। ছিলেন নিকের মা-বাবাও। রাতে পাঁচতারা হোটেলে বন্ধুবান্ধবদের জন্য পার্টির আয়োজন করেন অভিনেত্রী। সেখানে রণবীর সিংহ, কর্ণ জোহর, মনীশ মলহোত্র, রবিনারা আমন্ত্রিত ছিল।
যদিও প্রিয়াঙ্কার জন্মদিন, ১৮ জুলাই লন্ডনে বাগদান হয়েছে বলে সংবাদ প্রকাশ পায়। তবে দিন কয়েক আগে মুম্বাইয়ে এক অনুষ্ঠানে প্রিয়াঙ্কাকে এই বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে প্রশ্ন এড়িয়ে তিনি বলেন, ‘আমার ব্যক্তিগত জীবন ভক্তদের ভোগ করার বস্তু নয়।’

এদিকে গত কয়েক দিন ধরে প্রিয়াঙ্কার বাঁ হাতের অনামিকায় হিরের আংটি কারও দৃষ্টি এড়াতে পারেনি। নজর সরায়নি পাপারাৎজিরাও। তাছাড়া সালমান খান অভিনীত ‘ভারত’-এর কাজ ছেড়ে দেওয়ার পেছনেও ইঙ্গিত ছিল নিকের সঙ্গে তার আসন্ন বিয়ের। কাজ ছাড়ায় সালমানের সঙ্গে মনোমালিন্য থাকলেও অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন সালমানের বোন অর্পিতা খান।

এদিন দুপুরের মেনুতে ছিল পঞ্জাবি খাবার। ডাল মাখানি ও বাটার চিকেন নিকের বেশ পছন্দের। রাতের মেনুতে ছিল ভারতীয় ও কন্টিনেন্টাল বিভিন্ন রেসিপি। রাতে শহরের এক পাঁচতারা হোটেলে প্রথম অতিথি ছিলেন প্রিয়াঙ্কার বোন পরিণীতি চোপড়া। নিজেদের ছেলেবেলার কথা স্মরণ করে পরে ইনস্টাগ্রামে পরিণীতি লেখেন, ‘ছোটবেলায় আমি আর মিমি দিদি ‘ঘর-ঘর’ খেলতাম। আজ এক রূপকথার সাক্ষী থাকলাম।’
সূত্র : আনন্দবাজার



সাম্প্রতিক খবর

আবুধাবি প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নিলেন প্রধানমন্ত্রী

photo আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবু ধাবিতে আন্তজার্তিক প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম এর আমন্ত্রণে পাঁচদিন ব্যাপী এ প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নেন তিনি। রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশগ্রহণ শেষে জার্মানি থেকে

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment