আজ : ০১:২০, মে ২৪ , ২০১৮, ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫
শিরোনাম :

নেতানিয়াহুকে বিচারের মুখোমুখি করার সুপারিশ ইসরায়েলি পুলিশের


আপডেট:০৪:০৪, ফেব্রুয়ারি ১৪ , ২০১৮
photo

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ঘুষ, জালিয়াতি এবং আস্থা ভঙ্গের দায়ে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করার সুপারিশ করেছে দেশটির পুলিশ। দুটি দুর্নীতির মামলায় নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে কয়েক মাস ধরে তদন্ত চালানোর পর মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) এ সুপারিশ করা হয়। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, সুপারিশটি এখন অ্যাটর্নি জেনারেল বরাবর পাঠানো হবে। তিনিই সিদ্ধান্ত নেবেন নেতানিয়াহুকে বিচারের মুখোমুখি করা হবে কি হবে না। তবে পুলিশের ওই সুপারিশে শেষ পর্যন্ত ‘কিছুই হবে না’ বলে দাবি করেছেন নেতানিয়াহু।

কয়েক মাস ধরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে দুটি দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত করছিল ইসরায়েল পুলিশ। তার বিরুদ্ধে একজন ধনাঢ্য ব্যবসায়ীর কাছ থেকে উপহার নেওয়া এবং একটি সংবাদমাধ্যমের মালিককে ঘুষ দিয়ে ইতিবাচক সংবাদ প্রকাশের চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে। মঙ্গলবার ইসরায়েল পুলিশ তদন্ত শেষে তাদের সুপারিশ প্রদান করে।

কেস ১০০০ নামের প্রথম তদন্তে বলা হয়, নেতানিয়াহু রাজনৈতিক সুবিধা প্রদানের বিনিময়ে ধনাঢ্য ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে উপহার নিয়েছিলেন। পুলিশকে উদ্ধৃত করে ইসরায়েলি সংবাদমাধ্যম হারেৎজ জানায়, ২ লাখ ৮০ হাজার ডলার মূল্যের উপহার সামগ্রী গ্রহণ করেছেন নেতানিয়াহু। কেস ২০০০ নামে দ্বিতীয় তদন্তে বলা হয়, তেল আবিবের একটি পত্রিকার প্রকাশক আরনোন মোজেসকে ঘুষ দিয়ে ইতিবাচক সংবাদ প্রকাশের চেষ্টা করেছেন তিনি। ইসরায়েলি সংবাদপত্র ইয়েদিয়থ আহরনোথে নিজের পক্ষে ইতিবাচক সংবাদ প্রকাশের জন্য একটি চুক্তি করার চেষ্টা করেছিলেন নেতানিয়াহু। এর বিনিময়ে সংবাদপত্রটির প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষ ইসরায়েল হায়োমকে কোনঠাসা করতে সহায়তা করবেন বলে প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

ইসরায়েল পুলিশের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ওঠা ঘুষ, জালিয়াতি ও আস্থা ভঙ্গের অভিযোগগুলোর পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ আছে।’

নিজস্ব প্রতিনিধিকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরা জানায় নেতানিয়াহুকে বিচারের মুখোমুখি করা হবে কিনা সে সিদ্ধান্ত জানার জন্য সুপারিশগুলো অ্যাটর্নি জেনারেল বরাবর পাঠানো হবে।

শুরু থেকেই নেতানিয়াহু তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। মঙ্গলবারও একই অবস্থানে অনড় থাকতে দেখা গেল তাকে। এদিন টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত ভাষণে নেতানিয়াহু বলেন তিনি ক্ষমতায় থাকতে চান এবং পুলিশের সুপারিশে ‘কিছুই হবে না’। নেতানিয়াহু বলেন, ‘আমি যা করেছি তা ইসরায়েল রাষ্ট্রের ভালোর জন্যই করেছি। এখন পর্যন্ত আমি তা করে যাচ্ছি এবং করে যাব।’



সাম্প্রতিক খবর

১০ বছর ধরে অবৈধ বসবাকারীদের সাধারণ ক্ষমার জন্য অনলাইন স্বাক্ষর অভিযান

বিশেষ প্রতিনিধি: ব্রিটেনে অবৈধভাবে বসবাসকারি ইমিগ্রান্ডদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার দাবীটি ক্রমাগত জোরদার হয়ে ওঠেছে। ইতোমধ্যে নব নিযুক্ত হোম সেক্রেটারি ইমিগ্রান্ডদের স্বার্থ বিরোধী দুটি ধারা বাতিল ঘোষণা করেছেন। ব্রিটিশ ফরেন সেক্রেটারি ও লন্ডনের সাবেক মেয়র বরিস জনসন বরাবরই ইল্লিগ্যাল ইমিগ্রান্টদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষনার পক্ষে মতামত ব্যক্ত করে আসছেন। সম্প্রতি স্টিভ পার্কার

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment