আজ : ০৭:১৪, ফেব্রুয়ারি ১৬ , ২০১৯, ৪ ফাল্গুন, ১৪২৫
শিরোনাম :

বিরোধপূর্ণ দক্ষিণ চীন সাগরে রণতরী পাঠাচ্ছে যুক্তরাজ্য


আপডেট:০১:২২, ফেব্রুয়ারি ১৩ , ২০১৮
photo

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিরোধপূর্ণ দক্ষিণ চীন সাগরে রয়েল নেভির যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে যুক্তরাজ্য। অনেকদিন ধরেই এই অঞ্চলের কর্তৃত্ব দাবি করে আসছে চীন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট এর এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।প্রতিবেদনে বলা হয়, অস্ট্রেলিয়া হয়ে দক্ষিণ চীন সাগরে যাবে এইচএমএস সাদারল্যান্ড নামের ২৩ ফ্রিগেট।

ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী গেভিন উইলিয়ামসন বলেছেন, সাদারল্যান্ড দক্ষিণ চীন সাগর যাবে। এর মাধ্যমে আমরা প্রমাণ করবো যে এখানে আমাদের অধিকার রয়েছে। অস্ট্রেলীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী মেরিস পেনের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এমন ঘোষণা দেন গেভিন। তাদের আলোচনায় উত্তর কোরিয়া, সাইবার যুদ্ধ ও সন্ত্রাসবাদের মতো বিষয় উঠে আসে।

সাগরের এই জলসীমার মালিকানা নিয়ে কয়েকটি দেশের বিরোধ চলছে। অনেকদিন ধরেই এই অঞ্চলে কৃত্রিম দ্বীপ তৈরি এবং সামরিক স্থাপনা নির্মাণ করে আসছে চীন। অন্যদিকে এ অঞ্চলে ‘সামরিকীকরণ’ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন দীর্ঘদিন ধরেই পরস্পরকে দোষারোপ করে আসছে।

দক্ষিণ চীন সাগরের ওই অঞ্চল দাবি করে চীন। আর যুক্তরাষ্ট্রের দাবি সেটি আন্তর্জাতিক সীমারেখার অন্তর্ভূক্ত। এবার যুক্তরাজ্যও সেখানে রণতরী পাঠাচ্ছে। গেভিন বলেন, ‘বিশ্ব এখন প্রতিনিয়ত পাল্টাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র অনেক দিকে মনোযোগ দিচ্ছে। যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ারও এখন সুযোগ কিছু করার।’

চীনা কর্তৃত্বকে চ্যালেঞ্জ জানাতে প্রায়ই যুক্তরাষ্ট্র সেখানে রণতরী পাঠায়। গেভিন উইলিয়ামসন জানান, তারা যুক্তরাষ্ট্রের এই অবস্থানকে সম্পূর্ণ সমর্থন করেন। তিনি বলেন, ‘চীনকে অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্য অনেক সম্ভাবনার দেশ হিসেবে গণ্য করে। তবে এজন্য তাদের সব দাবি মেনে নিতে পারে না। নিজেদের জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টিও মাথায় রাখতে হয় আমাদের।



সাম্প্রতিক খবর

মিয়ানমার বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের ওপরে আঘাত করেছে: রিজভী

photo ঢাকা প্রতিবেদক: সরকার বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ক্রমাগত ব্যর্থ হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারনে মিয়ানমারও বাংলাদেশকে নিয়ে দুঃসাহস দেখাতে স্পর্ধা দেখাচ্ছে। বারবার মিয়ানমার সরকারীভাবে তাদের ওয়েবসাইটে সেদেশের মানচিত্রে সেন্ট মার্টিন দ্বীপকে নিজের অংশ হিসেবে দেখাচ্ছে। সেদেশের আরাকান

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment