আজ : ০৩:৩০, ফেব্রুয়ারি ১৭ , ২০১৯, ৫ ফাল্গুন, ১৪২৫
শিরোনাম :

সাবধান, সাবধান, সাবধান: অর্থমন্ত্রী


আপডেট:১০:৫৪, ফেব্রুয়ারি ৬ , ২০১৯
photo

ঢাকা সংবাদদাতা: ঋণ কেলেঙ্কারি চি‌হ্নিত করতে প্রত্যেক ব্যাংকে স্পেশাল অডিট করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। যারা ফেরত না দেয়ার জন্য ঋণ নেন, তাদের প্রতি তিনবার ‘সাবধান’ বাণী উচ্চারণ করেছেন মন্ত্রী। আজ বুধবার সকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ’র (কেআইবি) অডিটরিয়ামে রূপালী ব্যাংকের ব্যবসায়িক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘অর্থ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে শিগ‌গিরই তিন‌টি অডিট ফা‌র্মকে দিয়ে এ কাজ করানো হবে।’তি‌নি আরও বলেন, ‘আমাদের দেশে দুই ধরনের ব্যবসায়ী রয়েছে-প্রথম প্রকার হলো, যারা আসলেই ব্যবসা করতে চায় কিন্তু মাঝে মাঝে হোঁচট খায়, হোঁচট খেয়ে খেলাপিতে পরিণত হয়। তাদের প্রতি সহনশীল হতে হবে।’

কিন্তু অন্য আরেক ব্যবসায়ী আছে, যারা ফেরত না দেয়ার জন্য ঋণ নেন। তাদের প্রতি তিনবার সাবধান বাণী উচ্চারণ করেছেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘প্রকৃত ব্যবসায়ী এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করা হবে। ঋণ দেয়ার জন্য সবাইকে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। সাবধান, সাবধান, সাবধান। কেউ অসাধু উপায়ে ব্যবসা করার চিন্তা করবেন না।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘অসাধু ব্যবসায়ীদের কোনো প্রকার ছাড় নয়। যারা এদেরকে সাহায্য করবে (ব্যাংকের) তাদেরকেও কোনো ছাড় নেই। সময় কঠিন, সিদ্ধান্তও কঠিন।’খেলাপি ঋণ আদায়ে যেসব আইনের সংস্কার করা প্রয়োজন, সেগুলোতেও সরকার হাত দেবে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে রূপালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান মনজুর হোসেনের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন-বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ফজলুল হক এবং রূপালী ব্যাং‌কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. আতাউর রহমান প্রধান প্রমুখ।



সাম্প্রতিক খবর

আবুধাবি প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নিলেন প্রধানমন্ত্রী

photo আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবু ধাবিতে আন্তজার্তিক প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম এর আমন্ত্রণে পাঁচদিন ব্যাপী এ প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নেন তিনি। রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশগ্রহণ শেষে জার্মানি থেকে

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment