আজ : ০১:৫২, অগাস্ট ২১ , ২০১৮, ৫ ভাদ্র, ১৪২৫
শিরোনাম :

ঢাকা উত্তর সিটি: আওয়ামী লীগের প্রার্থীর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার


আপডেট:০৯:৪৮, জানুয়ারি ১১ , ২০১৮
photo

ঢাকা প্রতিনিধি: ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী নির্বাচন হবে আগামী ১৬ জানুয়ারি। ওই দিন দলের মনোনয়ন বোর্ডের সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রার্থী ঘোষণার আগে কেউ প্রার্থী নন। অনেকে নিজের মতো করে দলের সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন, করছেন। এতে প্রমাণিত হয় না যে, প্রার্থী নির্বাচন হয়ে গেছে। তবে, আতিকুল ইসলাম দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন। সে সময় শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কাজ কর। সিদ্ধান্ত পরে।’

এর আগে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগে রাজনীতিকের পরিবর্তে একজন ব্যবসায়ীকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। এবারো যারা আলোচনায় রয়েছেন তারা ব্যবসায়ী।একারণে, অনেকে বলছেন, আওয়ামী লীগ আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্রমশ ব্যবসায়ীদের দিকে ঝুঁকছে।

সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নেরে জবাবে ওবায়দুল বলেন, ‘দলের প্রার্থী, দলীয় নেতা আর নির্বাচন এটার মধ্যে পার্থক্য আছে। এটা রাজনৈতিক স্ট্রাটেজি। স্ট্রাটেজিক এলায়েন্স। নির্বাচনে স্ট্রাটেজিক এলায়েন্স হয়।’

‘আর একজন রাজনীতিবিদ কী ব্যবসা করতে পারেন না? তারা চাঁদাবাজি করে খাবেন?’ বলেন কাদের।

আরেকটি ওয়ান-ইলেভেন হওয়ার আশঙ্খা আছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ওয়ান ইলেভেন থেকে আমরা শিক্ষা নিয়েছি কিন্তু বিএনপি নেয়নি। সে কারণে ভয় আছে। আশঙ্খা আছে। বিএনপি তার বরর্তমান অবস্থা জেনে গেছে। নির্বাচনের আগেই সারা দেশের আওয়ামী লীগের জোয়ার দেখে বিএনপি বুঝে গেঝে যে আগামী নির্বাচনে তাদের পরিণতি কী। ভোট পাওয়ার মতো কোনো কাজ করেনি। সে কারণে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার চেষ্টা করবে বিএনপি। আওয়ামী লীগ বিএনপির সেই দুরভিসন্ধিতা বাস্তবায়ন করতে দিবে না।’

নিজেদের দল এবং সরকারের চার বছর নিয়ে দলের ভেতরে কোনো সংকট বা ত্রুটি দেখেন কি না এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘দলের ভেতরে ছোটখাটো সমস্যা থাকতেই পারে। সেকারণে কোথাও কোথাও সম্মেলন হয়নি। তবে দলকে আধুনিক এবং মাঠ সুসংগঠিত করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আগামী নির্বাচনে অংশ নেবো। ইতোমধ্যে আমাদের টিম নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রত্যেক্যের সাংগঠনিক এলাকায় তারা টিম ওয়ার্ক করে সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধান নিবে।’

সরকারের সফলতা ব্যর্থতা নিয়ে তিনি বলেন, ‘এ নিয়ে ১২ তারিখ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে বলবেন। এরপর দলীয়ভাবে আমরা একটি সংভাদ সম্মেলনে আমরা আমাদের কথাগুলো বলবো। আপাতত এতটুকু বলা যায়, আমাদের ত্রুটি নেই এমনটি বলবো না। চাঁদেরও তো কলঙ্খ আছে। তাই বলে কি আলো থেকে থাকে। আমাদের অনেক সফলতা আছে ত্রুটিও আছে তাই বলে আমাদের উন্নয়নকে ঢেকে রাখা যাবে না।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, আবদুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক আহমদ হোসেন, এনামুল হক শামীম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুর, শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আক্তার, উপ প্রচার আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।



সাম্প্রতিক খবর

অনুমতি ছাড়া ফৌজদারি মামলায় সরকারি চাকুরেদের গ্রেপ্তার নয়

photo ঢাকা সংবাদদাতা: অভিযোগপত্র গ্রহণের আগে ফৌজদারি মামলায় সরকারি কর্মচারীকে গ্রেপ্তারে সরকারের অনুমতি নেয়ার বাধ্যবাধকতা আরোপ হচ্ছে।সোমবার ঈদের আগে মন্ত্রিসভার শেষ বৈঠকে অনুমোদন হওয়া ‘সরকারি চাকরি আইন ২০১৮’ এর চূড়ান্ত খসড়ায় এমন বিধান রাখা হয়েছে। তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম এই তথ্য জানান। বলেন, ‘আগে গ্রেপ্তার

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment