আজ : ০৮:২৪, মার্চ ২৩ , ২০১৯, ৯ চৈত্র, ১৪২৫
শিরোনাম :

শামীমার পর এবার পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত দুই নারীর ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল


আপডেট:০৬:২৪, মার্চ ১১ , ২০১৯
photo

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগমের পর এবার আইএস-এ যোগদানকারী পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত দুই নারীর নাগরিকত্ব বাতিল করেছে যুক্তরাজ্য সরকার। সিরিয়ার শরণার্থী শিবিরে শামীমার সদ্যোজাত সন্তানের মৃত্যু নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা চলার মধ্যেই নতুন করে দুইজনের নাগরিকত্ব বাতিল হলো। আইএস সদস্যকে বিয়ে করা এ দুই নারীও সন্তানদের নিয়ে শামীমার মতোই সিরীয় শরণার্থী শিবিরে থাকছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ওই দুই তরুণীর নাম রীমা ইকবাল ও জারা ইকবাল। তারা দুই বোন।

পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত রীমা ও জারা পূর্ব লন্ডনের বাসিন্দা ছিল। ২০১৩ সালে আইএস সদস্যদের বিয়ে করে সিরিয়ায় পালিয়ে যায় তারা। ৩০ বছর বয়সী রীমার এক সন্তান যুক্তরাজ্যে আর আরেকজন সিরিয়ায় জন্মগ্রহণ করেছে। সিরিয়ায় যাওয়ার সময় জারার দ্বিতীয় সন্তান তার গর্ভে ছিল। সিরিয়ায় তৃতীয় সন্তানেরও জন্ম দেয় সে। বিবিসির প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, এ দুই বোনেরও নাগরিকত্ব বাতিল করেছে ব্রিটিশ সরকার। এ ব্যাপারে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে জানতে চাওয়া হলে, তারা বলেছে, ব্যক্তি বিশেষের মামলা নিয়ে তারা মন্তব্য করে না। তবে তাদের দাবি, প্রমাণ সাপেক্ষেই নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিষয়টিকে হালকাভাবে নেওয়া যাবে না বলেও দাবি তাদের।

এর আগে আইএস-এর জঙ্গিকে বিয়ে করা বাংলাদেশি-ব্রিটিশ শামীমা বেগমের নাগরিকত্ব বাতিল করেছিল ব্রিটিশ সরকার। আইএস-এর জিহাদি উন্মাদনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে যুক্তরাজ্য থেকে পালিয়ে সিরিয়ায় গিয়েছিল সে। জঙ্গি বিয়ে করে জিহাদি সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য যে প্রচারণা চালিয়েছিল আইএস, শামীমা তারই বলি হয়েছিল। নেদারল্যান্ডস থেকে সিরিয়ায় যাওয়া এক জঙ্গিকে বিয়ে করেছিল শামীমা। দুইবার গর্ভপাতের শিকার হওয়ার পর সিরিয়ার শরণার্থী শিবিরে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেয় সে। ১৭ ফেব্রুয়ারি শামীমার ছেলের জন্মের কথা জানানো হয়। পরে পুত্রসন্তানের নাম রাখা হয় জেরাহ। ১৯ ফেব্রুয়ারি শামীমার নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত কার্যকর করে যুক্তরাজ্য সরকার। ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ দেশটির পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় কমিটিকে তখনই বলেছিলেন, শামীমার নাগরিকত্ব বাতিল হলেও আইন অনুযায়ী তার সন্তান জেরাহ যুক্তরাজ্যের নাগরিক। জেরাহকে যুক্তরাজ্যে ফিরিয়ে আনা যেতে পারে। তবে ফেরা হয়নি তার। শামীমার আইনজীবী মোহাম্মদ আকুঞ্জি শুক্রবার (৮ মার্চ) জানান, ‘আমাদের কাছে দৃঢ় কিন্তু অনিশ্চিত খবর আছে যে শামীমা বেগমের ছেলে মারা গেছে।’

চিকিৎসা সনদ অনুযায়ী নিউমোনিয়ার কারণে মারা গেছে জেরাহ। তার বয়স হয়েছিল তিন সপ্তাহেরও কম। তার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে তুমুল সমালোচনা চলছে। শামীমার স্বজনদের অভিযোগ, ব্রিটেন শিশুটির নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। আর লেবার পার্টি বলছে, একটি ‘দাম্ভিক ও অমানবিক’ সিদ্ধান্তের কারণে সিরিয়ার শরণার্থী শিবিরে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।



সাম্প্রতিক খবর

এবার চালক-হেলপার মিলে সিকৃবি শিক্ষার্থী ওয়াসিমকে বাসচাপা দিয়ে হত্যা

photo সিলেট প্রতিবেদক: ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শেরপুরে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) এক শিক্ষার্থীকে হত্যা করেছে বাসটির চালক ও তার সহকারী।নিহত ছাত্রের নাম ওয়াসিম আফনান। তিনি সিকৃবির বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের চতুর্থ বষের ছাত্র। তার বাড়ি হবিগঞ্জে নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়ন রুদ্র গ্রামে। তার বাবার নাম মো. আবু জাহেদ

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment