আজ : ০৯:৫৩, এপ্রিল ২৪ , ২০১৮, ১১ বৈশাখ, ১৪২৫
শিরোনাম :

ভিসির বাসভবনে হামলা, মামলা প্রত্যাহারে দাবিকারীরা জড়িত: হাছান


আপডেট:১২:৩৬, এপ্রিল ১৭ , ২০১৮
photo

ঢাকা প্রতিনিধি: কোটা সংস্কার আন্দোলন চলাকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ভবনে হামলার ঘটনায় মামলা প্রত্যাহারের দাবি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন হাছান মাহমুদ।আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বলেছেন, যারা এই মামলা প্রত্যাহারের দাবি করছে, তারাই হামলায় জড়িত থাকতে পারে।

মঙ্গলবার দুপুরে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি ট্রাস্ট এবং শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত মুজিবনগর দিবসের এক আলোচনায় কথা বলছিলেন হাছান।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি কোটা সংস্কারের দাবিতে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। আর এই সংঘর্ষে এক ছাত্রের মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ভবনে হামলা হয়।

হামলাকারীরা ভবনের বাইরে থাকা গাড়ি, নিচতলা ও দোতলার আসবাবপত্র পুড়িয়ে দেয়, লুট করা হয় স্বর্ণালঙ্কারসহ মূল্যবান সামগ্রী, প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন, ঐহিহাসিক নথিপত্র।উপাচার্য আখতারুজ্জামান জানান, তাকেও হত্যার চেষ্টা হয়েছিল এবং লাশের রাজনীতির চেষ্টা হয়েছে।

এই হামলার ঘটনায় মামলা হয়েছে চারটি। তদন্ত চলছে, কিছু আসামি শনাক্তের কথাও জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

১৬ এপ্রিল কোটা নিয়ে আন্দোলনকারী সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতারা সংবাদ সম্মেলন করে দুই দিনের মধ্যে এই মামলাসহ শাহবাগে সংঘর্ষের চারটি মামলাও তুলে নেয়ার দাবি জানায়। নইলে আবার রাস্তায় নামার হুমকি এসেছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘তরুণ সমাজের প্রতি সম্মান রেখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কোটা পদ্ধতি বাতিল করে দিয়েছেন। কিন্তু এখন তারা ভিসির বাসভবনে হামলার ঘটনার মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে। এঘটনায় জনগণ মনে করছে তারা এ হামলার সাথে যুক্ত থাকতে পারে।’

আওয়ামী লীগের মুখপাত্র বলেন, ‘যারা উপাচার্যের বাসভবনে হামলা করেছে এবং যারা এর পেছন থেকে কল-কাঠি নেড়েছে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হোক। তাদের বিচার নিশ্চত করতে হবে।এই আন্দোলনের পেছনে খেলা ছিল, সেই খেলা বেস্তে গেছে বিধায় নানান ধরণের কথা বার্তা ছড়ানো হচ্ছে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধীর একটি চক্র এখনো বিভিন্নভাবে দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে। আর এসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে বিএনপির নেত্রী খালেদা জিয়া।’

মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি ট্রাস্টের চেয়ারম্যান আবুল আজাদের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, সংসদ সদস্য ফজিলাতুন্নেছা বাপ্পী, সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার কবি আজিজুর রহমান, ঢাকায় রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্রের পরিচালক আলেকজান্ডার পি ডেমিন প্রমুখ।



সাম্প্রতিক খবর

নাগরিকত্ব নিয়ে দুটি কথা

photo রোমান বখত চৌধুরীঃ আমি কোন লিগ্যাল এক্সপার্ট নই। তারপরও একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে সাধারণ জ্ঞানে নাগরিকত্ব নিয়ে যা বুঝি তা পেশ করছি। ভুল হলে মন্তব্যে আপনার মতামত রাখেন। সানন্দে গ্রহণ করবো... পাসপোর্ট হচ্ছে একটি ট্রাভেল ডকুমেন্ট। এটি সাধারণত একজন ব্যক্তি যে দেশে জন্মগ্রহন করেছেন সে দেশ ইস্যু করে। একটি পাসপোর্ট দিয়ে একজন ব্যক্তি কোন দেশের তা চিহ্নিত করা যায়। পাসপোর্ট মূলত আন্তর্জাতিক

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment