আজ : ০১:৩১, ডিসেম্বর ১৩ , ২০১৯, ২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬
শিরোনাম :

সিলেটের তেল ডিপোগুলোর অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ


আপডেট:০৫:০৬, মার্চ ২ , ২০১৯
photo

সিলেট প্রতিবেদক: সিলেটের পদ্মা, যমুনা ও মেঘনা তেল ডিপো ঝুঁকিপূর্ণ বলে সিলেট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করা হলেও সংশ্লিষ্টরা যথাযথ ব্যবস্থা নেয়নি।

সিলেট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক দিনামনি শর্মা বলেন, ‘তেলের ডিপোগুলোর অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে তদারকি করেছে ফায়ার সার্ভিসের তদন্ত টিম। ডিপোগুলোতে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা পরিস্থিতি নাজুক। আমরা লিখিতভাবে তাদেরকে অবহিত করেছি। তারা যদি সচেতন না হন, তাহলে ভবিষৎতে কোনও ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলে, দায়ভার তাদেরকেই নিতে হবে।’

সিলেটের ভার্থখলায় পদ্মা ওয়েল কোম্পানি লিমিটেড (পদ্মা ডিপো), দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারে মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড (মেঘনা ডিপো), ও টেকনিক্যাল রোডে যমুনা ওয়েল কোম্পানি লিমিটেড (যমুনা ডিপো)। এরমধ্যে পদ্মা ডিপোকে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ, মেঘনা ডিপোকে ঝুঁকিপূর্ণ ও যমুনা ডিপোকে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তদন্তকারী দল। এই তিনটি ডিপো থেকে সিলেটের পাম্পগুলোতে তেল বিক্রি করা হয়। এছাড়া এসব ডিপোতে জ্বালানি তেল মজুদও রাখা হয়।

ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে পদ্মা ডিপো, মেঘনা ডিপো, যমুনা ডিপো ফায়ার সার্ভিসের তদন্তের দায়িত্বে থাকা দলটি ক্রমান্বয়ে সিলেটের জ্বালানি সরবরাহকারী ডিপোগুলোতে সরেজমিনে তদন্ত করেছে। তদন্তকারী দলটি ডিপোর দায়িত্বে থাকা ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের কাছে তদন্ত প্রতিবেদনও দাখিল করে। ঝুঁকিপূর্ণের তালিকায় রয়েছে টেকনিক্যাল রোডের যমুনা ওয়েল কোম্পানি লিমিটেড। এই প্রতিষ্ঠানটির কাছেই দুটি চারকল মিল রয়েছে। প্রতিদিন এই দুটি প্রতিষ্ঠানে কয়েক লাখ টন কয়েল লাকড়ি উৎপাদন করা হয়। এসব মিলের চুঙ্গি দিয়ে আগুনের স্ফুলিঙ্গ বের হয়ে ডিপোগুলোর সীমানা প্রাচীরের মধ্যে উড়ে এসে পড়ছে।

যমুনা ডিপোর বিষয়ে ফায়ার সার্ভিসের তদন্ত প্রতিবেদন উল্লেখ করা হয়- ডিপোটিতে বজ্র নিরোধক ব্যবস্থা নেই। অগ্নিনির্বাপণ, উদ্ধার ও প্রাথমিক চিকিৎসা বিষয়ে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনবল নেই। এখানে অগ্নিনির্বাপণী যন্ত্র ব্যবহার ও রক্ষণাবেক্ষণে স্থাপনায় কর্মরত জনবল প্রশিক্ষিত নয়।

সুপারিশে বলা হয়েছিল, ডিপোটির জ্বালানি তেল সংরক্ষণাগারে অগ্নিনিরাপত্তা ব্যবস্থা অত্যন্ত নাজুক ও খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। প্রায় ৩৪ লাখ লিটার ধারণ ক্ষমতার সংরক্ষণাগারে কোন হাইড্রেন্ট বা ফিক্সড ফোম গ্রাউন্ড মনিটর নেই। ডিপোর অভ্যন্তরে কোনও জলাধার নেই। এখানে ২ লাখ লিটার ধারণ ক্ষমতার একটি ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণ আবশ্যক। ভার্টিকেল ফুয়েল ট্যাংকের চূড়ায় ‘বজ্রপাত নিরোধক’ দণ্ড স্থাপন করতে হবে। এছাড়া এই ডিপোর কর্মীদের নিয়মিত অগ্নিনির্বাপণ ও প্রাথমিক চিকিৎসা বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও মহড়া প্রতিমাসে অন্তত একবার করতে হবে।

যমুনা ডিপোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘অগ্নিনির্বাপণ করার জন্য যেসব যন্ত্রপাতি থাকার কথা তা এই ডিপোতে রয়েছে। তবে ডিপোর অভ্যন্তরে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ চলায় তা অনেকটা কম রয়েছে। পুরো কাজ শেষ হওয়ার পর পরই অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হবে।’

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তালিকায় এই ডিপোটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ বলা হয়েছে উল্লেখ করলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে, ডিপোর কাছাকাছি চারকলের দুটি মিল থাকায় অনেকটা ঝুঁকি রয়েছে।’

ফায়ার সার্ভিস সূত্র নিশ্চিত করেছে, পদ্মা ডিপোতেও আগুন নেভানোর জন্য দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনবল নেই। কয়েকটি অগ্নিনির্বাপণ সিলিন্ডার রয়েছে। ডিপোর অভ্যন্তরে কোনও জলাধার নেই। বালতি ও বালু সংরক্ষণ করার কথা থাকলেও তা অধিকাংশ স্থানে নেই। এছাড়া কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ ও মহড়াও হয়না। এই ডিপোর কাছেই খোলা বাজারে তেল ও এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার বিক্রি হয়।

এই বিষয়ে পদ্মা ডিপোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসান হাবিব বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিস পদ্মা ডিপোকে ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় রেখেছে, তা আমার জানা নেই। কয়েকমাস আগে আমি এই ডিপোতে যোগদান করেছি। আগুন নির্বাপণ করার জন্য আমাদের যেসব যন্ত্রপাতি থাকার কথা সব কিছুই রয়েছে। তবে, পাশাপাশি বহুতল ভবন থাকায় অনেকটা ঝুঁকি রয়েছে। তবুও সিসি ক্যামেরা ও নিরাপত্তারর্ক্ষীদের মাধ্যমে কঠোর নিরাপত্তায় রাখা হয়েছে।’

দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারের মেঘনা তেলের ডিপোকেও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় রেখেছে। এই ডিপোতেও অগ্নিনির্বাপণ করার জন্য দক্ষ কোনও জনবল নেই। সেইসঙ্গে তেমন কোনও যন্ত্রপাতিও নেই। যা আছে তা কাজ করবে কি না তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে ফায়ার সার্ভিসের। এখানকার কর্মচারীদের প্রশিক্ষণও নেই। ডিপোতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থাও নেই।

Posted in সিলেট


সাম্প্রতিক খবর

গোলাপগঞ্জের ২৫ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে এডুকেশনাল এক্সিলেনস অ্যাওয়র্ড প্রদান

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ঃ গত ৯ ডিসেম্বর পূর্ব লন্ডনের ইম্প্রেশন ইভেন্ট হলে অনুষ্ঠিত হলো বৃটেনে গোলাপগঞ্জের সর্ব বৃহৎ সংগঠন গোলাপগঞ্জ উপজেলা এডুকেশন ট্রাষ্ট ইউকে'র এডুকেশনাল এক্সেলেন্স অ্যাওয়ার্ডস - ২০১৯। ব্রিটিশ বাংলাদেশি (গোলাপগঞ্জী) যে সকল মেধাবী ছাত্র ছাত্রীরা কৃতিত্বের সহিত কৃতকার্য হয়েছে তাদেরকে সম্মানিত করা হয়। এতে ভালো ফলাফলের জন্য গোলপগঞ্জ উপজেলার ২৫ শিক্ষার্থীকে এই

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment