আজ : ০৯:৩৪, জুন ২২ , ২০১৮, ৮ আষাঢ়, ১৪২৫
শিরোনাম :

বাংলা কোন মাস কোন তারিখে জন্ম তা যেনে নেওয়ার সহজ উপায়- আছহাব উদ্দিন


আপডেট:০১:৩৫, ফেব্রুয়ারি ১৭ , ২০১৫
photo

লন্ডনবিডিনিউজ২৪: পরিবেশ বিপন্ন দেখে মানব জাতির কল্যানে একটি চিরস্থায়ী বাংলা এবং খৃষ্টিয় ক্যালেন্ডার ১৯৯৮ সালে সাজাই। যেখানে একই পৃষ্টায় বারটি বাংলা এবং খৃষ্টিয় মাসের সন তারিখ দেখা যায়। ২৮ বছরে সাতটি সাধারন বর্ষ সাতটি অতিবর্ষের ক্যালেন্ডার সব সময় ব্যবহার করি। আমার প্রনিত তথ্য যেনে রাখলে সকল বাংলাদেশীর মান ক্ষুন্ন না হয়ে উপকার হবে। অনেকেই আমার মত তথ্য জানেন না, একারনেই আমি গবেষণা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে আবিস্কার করা ফলাফল লিখতেছি।
সব জানুয়ারীর প্রথম ১৮ই পৌষ, ফেব্রুয়ারী ১৯ মাঘ, মার্চ ১৭ ফাল্গুন, এপ্রিল ১৮ চৈত্র, মে ১৮ বৈশাখ, জুন ১৮ জৈষ্ঠ, জুলাই ১৭ আষাঢ়, আগষ্ট ১৭ শ্রাবণ, সেপ্টেম্বর ১৭ ভাদ্র, অক্টোবর ১৬ আশ্বিন, নভেম্বর ১৭ কার্তিক, প্রথম ডিসেম্বর ১৭ অগ্রহায়ণ মাস হয় থাকে।
নিজে কত বাংলায় কোন মাসের কত তারিখ এবং সাপ্তাহের কোন দিন জন্মেছেন জানতে পারবেন। ১৯৫১ সনকে বাংলা সালে রূপান্তর করতে ১৯৫১ সাথে সাত যোগ করে ১৯৫৮ বাংলা পাওয়া যায়, ইহা থেকে ছয় শত বিয়োগ করলে ১৩৫৮ বাংলা পাওয়া গেল। আমরা নিজের ইংরেজী জম্ম দিনটি বাংলাতে রূপান্তর করে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাড়াব। সকল বাংলাদেশী যেন নিজের জন্ম তারিখটি বাংলায় রূপান্তর করতে পারে, তাই আমি বাংলা খৃষ্ট মাসকে রূপান্তর করে চিরস্থায়ী ক্যলেন্ডার স্বরূপ সকল বাংলাদেশীর জন্য উপহার করে দিলাম। বাংলা ও খৃষ্টীয় সনের পুনরাবৃত্তি আটাশ বৎসর পর পর হয়। আটাশ বছরে সাতটি অতিবর্ষ এবং সাতটি সাধারণ বর্ষ রয়েছে। অতিবর্ষে ফ্রেব্রুয়ারি ২৯ দিনে, ফাল্গুন মাস ৩১ দিনে, বৎসর ৩৬৬ দিনে।
বাংলা সনের সাথে (৬০০) ছয়শত যোগ করে সাত যোগ করলে খৃষ্ট সন পাওয়া যায়। বাংলা সনের প্রথম পাঁচ মাসের প্রতি মাসে (৩১) একত্রিশ দিন, পরের সাত সাসে (৩০) ত্রিশ দিন। তবে লিপ ইয়ারে ফাল্গুন মাসে (৩১) একত্রিশ দিন করে ১৩০৩ সাল থেকে শুরু হয়েছে। প্রতি বছর ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষ (পহেলা বৈশাখ), একই ভাবে প্রথম জানুয়ারী খৃষ্ট নববর্ষ হিজরী বা ইসলামী নববর্ষ পহেলা মহররাম হলেও তা সকলে জানেনা বা অনেকে তা বুঝার চেষ্টাও করেনা। খৃষ্ট সনের সাথে সাত যোগ করে ৬০০শত বিয়োগ করলে সমকালীন বাংলা সন বৈশাখ থেকে পাওয়া যায়। লিপইয়ার বা অতিবর্ষের প্রথম দিন শনিবার হলে সর্বশেষ দিনটি শনিবার হবে, সাধারণ বৎসর গুলি ৩৬৫ দিনের, শনি-ররি-সোম-মঙ্গল-বুধ-বৃহ- করে শুক্রবার শুরু হলে একই নিয়মে শনি-রবি-সোম এর হিসেব মতে শুক্রবারে শেষ হয়।
হিসেব করে হিজরী মাসের প্রথম দিন বাহির করা আমার গবেষনা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে সহজ হয়ে আসায় সকলেই লাভবান । আমরা বাঙ্গারীরা বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাড়াতে পারি। আটাশ বছরে সাতটি অতিবর্ষ, সাতটি সাধারণ বর্ষের ক্যালেন্ডার আমরা ঘোরে ফিরে কাজে লাগাইতে পারি, যেখানে মাত্র চৌদ্ধ বৎসরের জন্য একবার বৃক্ষ কাটলে পরিবেশ ঠিক থাকবে সেস্থানে বছর বছর বৃক্ষ কেটে পরিবেশ বিপন্ন করা কি সৃষ্টির আদেশ লংঘনের শামিল বা গূনাহের কাজ হয়ে যাবে না? আমি চাঁদের হিসাব করতে গিয়া অনেক সময় দিয়াছি যাহাতে ফজিলত লাভের পরিবর্তে ভূল দিনক্ষনে ইবাদত পালন করে আদেশ লংঘনের শামিল বা গূনাহের কাজ না হয়ে যায়।
হিজরী সনগুলি বাংলা কৃষ্টিয় সন থেকে রুপান্তর করা ও প্রয়োজন, তাই ১৯৮৬ কৃষ্টিয় সনকে বাংলায় এবং হিজরী সনে রূপান্তর করার দিগ নির্দেশের জন্য যোগ, বিয়োগ, ভাগ এবং গুন করেছি।
হিজরী সনগুলি, বাংলা কৃষ্টিয় সন থেকে গড়ে দশ বা এগারো দিন ছোট দ্বিধায় ১৯৮৬ কৃষ্টাব্দ থেকে ৬২২ বিয়োগ করে ১৩৬৪ পাওয়া গেল। হিজরী সনের শুরু হয়েছিল ৬২২ কৃষ্টাব্দ থেকে, ১৯৮৬ এবং ৬২২ এর স্থির ব্যবধান ৬২২ বিয়োগ করে ১৩৬৪ পাওয়া যায়। ১৩৬৪ কে ১১ দিয়া গুন করলে গুনফল ১৫০০৪ হয়। ১৫০০৪ দিনকে ৩৫৪ দ্বারা ভাগ করে ৪২.৩৮৪১৮০৭৯ পাওয়া গেল, ভাগফলের দশমিক বিন্দুর ডানদিকের সংখ্যা বাদ দিয়ে, ১৩৬৪.এর সাথে ৪২স্থলে ৪৩ যোগ করে ১৪০৭ হিজরী।
প্রাচীণ গ্রিক জ্য্যোতিষী জুলিয়াসের মতে পৃথিবী নিজ কক্ষ পথে ঘুরতে ঘুরতে ৩৬৫ দিন ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডে একবার সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে থাকে তার মতে এটি বার্ষিক গতি। গ্রেগরি ৫ ঘণ্টা ৪৮ মনিট ৪৭ সেকেন্ডের সাথে ১১ মিনিট ১৪ সেকেন্ড যোগ দিলে ৩৬৫দিন ৬ঘণ্টা হিসেব করে প্রথম তিন বৎসর ৩৫৬ দিন এবং চতুর্থ বত্সর ৩৬৬ দিন হিসেবে গণনা করে লিপ ইয়ার বর্ষপঞ্জির অন্তর্ভূক্ত করেন। এর বহু বছর পর পোপ গ্রেগরী এনিয়ে গবেষণা করেন তার মতে প্রতি বছরে ১১মিনিট ১৩ সেকেন্ড বেশী ধরায় চারশ বছরে তিন দিন বেশী ধরা হয়, তা লিপ ইয়ার বা অধিবর্ষ নয়। এর জন্যে ১৭০০, ১৮০০, ১৯০০, ২১০০, ২২০০, ২৩০০ খৃষ্টাব্দে অধিবর্ষ নয় বা হবেনা। তবে ১৬০০, ২০০০,ও ২৪০০ খৃষ্টাব্দ অধিবর্ষ হয়। আর এটিই ছিল গবেষক জুলিয়াসের পর গ্রেগরির সংশোধন, আর এই ক্যালেন্ডরটি গ্যাগরির নামে হয়।
আছহাব উদ্দিন 07556 393 641 ashabuddin786@yahoo.co.uk



সাম্প্রতিক খবর

যুক্তরাজ্যে আইএসের নারী-হামলার পরিকল্পনাকারীরা কারাগারে

photo আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাজ্যে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) হয়ে প্রথম পূর্ণাঙ্গ নারী-হামলার পরিকল্পনাকারী সব নারীকে কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত। মূল পরিকল্পনাকারী রিজলাইন বৌলারকে ন্যূনতম ১৬ বছর কারাভোগের নিমিত্তে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা দেওয়া হয়েছে। সাজাপ্রাপ্ত আরেকজন মরক্কো বংশোদ্ভূত রিজলাইন বৌলারের মা মিনা ডিচ। তাকে ছয় বছর ৯ মাস কারাদণ্ড এবং পাঁচ বছর নজরদারিতে রাখার সাজা

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment