আজ : ১২:৪৯, মার্চ ২৩ , ২০১৯, ৮ চৈত্র, ১৪২৫
শিরোনাম :

নেপালে বিমান বিধ্বস্ত: বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় শোক


আপডেট:০৬:৪১, মার্চ ১৪ , ২০১৮
photo

ঢাকা প্রতিনিধি: নেপালের কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় ব্যাপক প্রাণহানিতে নিহতদের স্মরণে এক দিনের শোক পালন করবে বাংলাদেশ। আগামীকাল বৃহস্পতিবার পালিত হবে ‘শোক দিবস’ হিসেবে।

বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুক্রবার মসজিদ মন্দিরসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও উপাসনালয়ে দোয়া ও প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠানের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

গত সোমবার বাংলাদেশের বেসরাকরি বিমান পরিচালনাকারী সংস্থা ইউ এস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি বিমান নেপালের ত্রিভূবন বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বিধ্বস্ত হয়। এতে ৬৭ জন যাত্রী ও চারজন ক্রু ছিল, যাদের মধ্যে ৫০ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে নেপালি কর্তৃপক্ষ।

দুর্ঘটনায় বিমানের ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান ও কো পাইলট পৃথুলা রশীদ এবং দুই কেবিন ক্রু শারমীন আক্তার নাবিলা এবং খাজা হুসাইন এবং ২২ বাংলাদেশি যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত অবস্থায় নেপালের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন আরও ১০ বাংলাদেশি। এই দুর্ঘটনার কারণে প্রধানমন্ত্রী তার সিঙ্গাপুর সফর এক দিন সংক্ষিপ্ত করে মঙ্গলবার রাতেই দেশে ফিরেছেন।

এর আগেই বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক এবং আরও প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়ে একটি বিমান পাঠানো হয় নেপালে। বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামালও এখন দেশটিতে অবস্থান করছেন। বিমান দুর্ঘটনায় আহতদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে এনে চিকিৎসার ঘোষণাও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

বিচার পরিচালনাকারী সংস্থা ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের পক্ষ থেকেও আহতদের তাদের খরচে দেশে আনা এবং চিকিৎসার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে নিহতদের মরদেহ দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে বলে জানানো হয়েছে। তবে দুর্ঘটনার পর আগুন লেগে যাওয়ায় অনেক মরদেহ পুড়ে গেছে, ফলে তাদেরকে শনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়েছে।



সাম্প্রতিক খবর

জেসিন্ডার মতো নেতা দরকার যুক্তরাষ্ট্রের : নিউইয়র্ক টাইমস

photo আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে একজন অস্ট্রেলীয় সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত হয়েছে ৫০ জন মুসলমান। ব্রেন্টন ট্যারেন্ট নামের ওই হামলাকারী তাদের হামলার ভয়াবহতা বুঝাতে হামলার সেই ঘটনা ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ছেড়ে দিয়েছিল। সব মিলিয়ে পুরো বিশ্বে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু এই সপ্তাহ পুরো বিশ্ব দেখেছে, নিউজিল্যান্ডের

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment