আজ : ০৭:২১, ফেব্রুয়ারি ১৭ , ২০১৯, ৫ ফাল্গুন, ১৪২৫
শিরোনাম :

টাওয়ার হ্যামলেটসের সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমানের বাড়ি নিলামে


আপডেট:০৪:২১, অগাস্ট ৫ , ২০১৮
photo

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: টাওয়ার হ্যামলেটসের সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমানের বাড়ি নিলামে উঠেছে। অনিয়মের মামলায় অভিযোগকারীদের আইনি খরচের অর্থ দিতে অস্বীকার করে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেন তিনি। এ কারণে তার বাড়ি নিলামে তোলা হচ্ছে। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত লুৎফুর রহমান টাওয়ার হ্যামলেটসে দু’বারের নির্বাচিত সাবেক মেয়র।

২০১৫ সালে একটি নির্বাচন আদালতে দুর্নীতি ও অবৈধ কর্মকাণ্ডের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় লুৎফর রহমানকে বহিষ্কার করা হয়। তার আগে দ্বিতীয় নির্বাচিত হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তোলেন চারজন ভোটার। ওই অভিযোগের বিষয়ে সরকারের পক্ষে কাজ করা আইনজীবীদের অর্থ বাবদ তাকে ৫ লাখ পাউন্ড অর্থ পরিশোধ করতে বলা হয়। তখন নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে পাঁচ লাখ পাউন্ড দিতে না পেরে লুৎফর রহমান নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেন। এ পরিস্থিতিতে তার বিক্রির ‘ব্রোমলি-বাই-বো’ এর বাড়িটি নিলামে প্রস্তাবনা রয়েছে। করসহ যাবতীয় আনুষঙ্গিক খরচ মেটানোর পর বাড়িটির দাম ধরা হয়েছে আড়াই লাখ পাউন্ড।

তার আগে অর্থ পরিশোধে না পারায় লুৎফর রহমানের কাছে পাওনা অর্থ সরকারের কাছে আবেদন করেন ওই আইনজীবীরা। তবে ওই আবেদন খারিজ করে দিয়েছে ব্রিটিশ সরকার। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ‘টেন ডাউনিং স্ট্রিট’কে লেখা এক চিঠিতে শীর্ষ পিটিশনার এন্ডি এরলাম জানান, ‘উদ্ভুত বিশেষ আইনি পরিস্থিতিতে তারা থেরেসা মে’কে এক মিলিয়ন পাউন্ডের আইনি খরচ মেটাতে প্রয়োজনে সরকারি ফান্ডের সাহায্য নিতে অনুরোধ করেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তা নাকচ করে দেন।’

২০১৫ সালে সরকারের হয়ে হাইকোর্টে এ মামলায় জেতার পরও আইনজীবীদের প্রতি এমন আচরণকে এন্ডি এরলাম ‘হাস্যকর’ বলে উল্লেখ করেন। ইস্ট লন্ডন অ্যাডভার্টাইজারকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ‘মামলা চলাকালীন তারা (বর্তমান সরকার) ক্ষমতায় ছিল কিনা, এটি কোনও বিতর্কের বিষয় হতে পারে না। লক্ষণীয় বিষয় হলো— এখন তারা ক্ষমতাসীন এবং বিগত সময়ে একই রাজনৈতিক দল প্রাসঙ্গিক সব প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিল।’

এ বিষয়ে জানতে শনিবার লুৎফুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে লুৎফুর রহমান জনসমক্ষে দেওয়া তার সর্বশেষ বক্তব্যেও নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন। শুরু থেকেই ব্যক্তি ও মহল বিশেষের প্রতিহিংসার শিকার বলে দাবি করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে প্রথমবার নির্বাহী মেয়র নির্বাচিত হন লুৎফুর রহমান। বাংলাদেশের সিলেট থেকে ছেলেবেলায় মা বাবার সঙ্গে যুক্তরাজ্যে আসেন তিনি। পরে লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। তার পরিবার লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটস অঞ্চলের বাসিন্দা। লুৎফুর রহমান লন্ডনের সিটি ইউনিভার্সিটিতে আইন বিষয়ে পড়াশুনা করেন। পরে আইন পেশা গ্রহণ করেন। তিনি একজন সলিসিটর এবং পারিবারিক আইন বিষয়ে প্রাকটিস করতেন। এরপর রাজনীতিতে সক্রিয় হন। দ্বিতীয় দফায় মেয়র নির্বাচিত হবার পর অনিয়মের অভিযোগে তাকে মেয়র পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।



সাম্প্রতিক খবর

উপজেলা ভোটে বিএনপিসহ বড় দলের না আসাটা হতাশাজনক: সিইসি

photo ঢাকা প্রতিবেদক: প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে বিএনপিসহ বড় কয়েকটি রাজনৈতিক দল অংশ নেবে না। এটা নির্বাচন কমিশনের (ইসি) জন্য হতাশাজনক খবর। রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে (ইটিআই) পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ (টিওটি) কর্শালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment