আজ : ১০:৪৫, অগাস্ট ২৪ , ২০১৯, ৯ ভাদ্র, ১৪২৬
শিরোনাম :

কাউন্সিল অব মস্কের সংবাদ সম্মেলন


আর্থিক সংকট মোকাবেলায় কমিউনিটির সর্বস্তরের সহযোগিতা কামনা

আপডেট:০৭:৫৩, এপ্রিল ১৮ , ২০১৯
photo

লন্ডনবিডিনিউজ২৪: পুর্ব লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটস বারার ৫৫টি মসজিদ ও ইসলামী সেন্টার নিয়ে গঠিত 'কাউন্সিল অব মস্ক' সস্প্রতি নানা আর্থিক সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংগঠনের আর্থিক নানা সংকট সম্পর্কে অবহিত করতে গত ১৬ এপ্রিল মঙ্গলবার পুর্ব লন্ডনের এলএমসির সেমিনার হলে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের চেয়ারম্যান হাফেজ মাওলানা শামসুল হকের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সেক্রেটারী সিরাজুল ইসলাম হীরা। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের ট্রেজারার মোহাম্মদ আব্দুল মুনিম জাহেদী ক্যারল,সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল মুকিত।

সংগঠনের সেক্রেটারী সিরাজুল ইসলাম হীরা তার লিখত বক্তব্যে বলেন, সংগঠনটি ২০০১ সালের প্রতিষ্ঠার পর থেকে বারার বিভিন্ন ইসলামিক প্রতিষ্ঠান গুলোকে নানা ভাবে পরামর্শ ও সহযোগিতা করে আসছে। সে সাথে সন্ত্রাস দমন, আইনশৃঙ্খলার উন্নয়নে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল, লন্ডন মেয়র অফিস ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে নিয়মিত সংগঠনটি কাজ করে যাচ্ছে।

তবে বিভিন্ন কারনে মেইনস্ট্রিম ফান্ডিং বন্ধ হওয়ায় আর্থিক সংকটে পড়তে হয়েছে সংগঠনটিকে। ফলে বতর্মানে কল্যানমুখী এই সংগঠনকে টিকিয়ে রাখতে সকলের সার্বিক সহযোগিতা চেয়েছেন তারা।

উল্লখ্যঃ ‘কাউন্সিল অব মস্ক টাওয়ার হ্যামলেটস্’একটি আমব্রেলা সংগঠন।

২০০১ সালে মুসলিম কমিউনিটির কিছু গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের দুরদর্শীতায় এবং ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় কমিউনিটির ধর্মীয় এবং সামাজিক বৈষম্য ঐকতানের জন্য আমাদের মুসলমান সমাজকে স্থানীয়ভাবে গতিশীল করার প্রত্যাশায় এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত করেন। সেই মহৎ ব্যক্তিবর্গের প্রচেষ্ঠা এবং তাঁদের এই দুরদর্শীতাকে কৃতজ্ঞতার সহিত স্মরণ করছি। প্রতিষ্ঠা লাভের পর থেকে হাঁটি হাঁটি পা পা করে আজ আমরা লন্ডন ব্যুরো অব টাওয়ার হ্যামলেটস্ এর মধ্যে ৫৫টি ইসলামিক সংগঠনের সমন্বয়ে একটি মর্যাদা সম্পন্ন শক্তিশালী সংগঠন হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছি।

তিনি বলেন, ২০০৮ সালে আমাদের এই সংগঠনটি বৃটেনের চ্যারিটি কমিশনের সাথে নিবন্ধন লাভ করে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল; টাওয়ার হ্যামলেটসে বসবাসরত সর্বস্তরের মুসলিম কমিউনিটির দৈনন্দিন সকল ধরনের ধমীর্য় সমস্যার মোকাবেলা করার জন্য সুষ্ট পদক্ষেপ নেয়ার ব্যাপারে সুপরামর্শ দানের সাথে সাথে সহযোগিতা করা, লন্ডন ব্যুরো অব টাওয়ার হ্যামলেটসের অন্তর্গত আমাদের ধর্মীয় কাজ সামাদা করার লক্ষ্যে গঠিত সকল মসজিদ এবং ইসলামিক সংগঠনের সাথে সহযোগিতা করে, তাঁদের নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় বিষয়াধির ব্যাপারে সুপরার্শ এবং স্থানীয় কতৃপক্ষের প্রয়োজনীয় বিধি এবং নিয়ম নীতির ভিত্তিতে আমাদের কমিউনিটির সংগঠিত সংগঠন পরিচালনায় যাতে কোন ধরনের ব্যাঘাত না ঘটে, সে সব বিষয়গুলি নিরুপনের জন্য কতৃপক্ষ এবং সংগঠনের সাথে সমন্বয় রেখে কাজ করে সেতুবন্ধন স্থাপন করা। বর্নিত বিষয়াধি সমাধানের লক্ষে বিজ্ঞ পেশাজিবীদের নিয়ে কমিউনিটিতে সেবাদানকারী সকল সংগঠন এবং কিমিউনিটির সেবা গ্রহনকারীদের সমন্বয়ে সময় উপযোগি করে বিভিন্ন ধরনের, সেমিনার, ওয়ার্কসোপ সহ পরামর্শ সভার আয়োজন করে উপস্থিত সমস্যা সমাধানের পথ খুজা।

আমাদের বিগত ১৮ বছরের কার্যক্রমের অভিজ্ঞতার আলোকে টাওয়ার হ্যামলেটের ইসলামিক কমিউনিটি সংগঠনগুলি বতর্মানে যুক্তরাজ্যের কঠিন চাহিদা মোতাবেক পরিচালনা করতে যেসব সম্যাবলীর সম্মুখীন সেগুলোর মধ্যে :

সুষ্ট ভাবে গঠনতন্ত্র তৈরী এবং তা পরিচালনায় কমিটির করণীয় বিষয়। প্রতিদিনের কার্যাবলীর সুষ্ট রেকর্ড সংরক্ষণ সহ, স্থানীয় এবং সম্পৃক্ত কতৃপক্ষের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে তাঁদের চাহিদা মেটানো। চ্যারিটি কতৃপক্ষের নীতি মোতাবেক সকল আইন মেনে নিবন্দন করা এবং আইন বিষয়ে পূর্ন ধারনা।

বৃটেনের সর্বস্তরের জনগনের কল্যাণের জন্য উল্লেখযোগ্য কয়েকটি বিধিবদ্ধ পলিসি বিদ্যমান যেমন; কনফ্লিক্ট অব ইন্টারেষ্ট পলিসি, ইক্যুয়ালিটি এন্ড ডাইভারসিটি পলিসি, ফাইন্যান্স পলিসি, প্রটেকশন এবং ভ্যালনারেবল অ্যাডাল্ট পলিসি, ভলান্টিয়ার পলিসি, অ্যাটেনডেন্স এন্ড পাংচ্যুয়ালিটি পলিসি, এন্টি বুলিং পলিসি, বিহ্যাইভিয়ার পলিসি, কমপ্লেইন এন্ড প্রটেকশন পলিসি, ফার্স্ট এইড পলিসি, ডাটা প্রটেকশন পলিসি, ফায়ার সেফটি পলিসি, হ্যাল্থ এন্ড সেফটি পলিসি, এমপ্লোয়মেন্ট পলিসি, চাইল্ড প্রটেকশন পলিসি, হুইসেল ব্লয়িং পলিসি ইত্যাদি নীতিমালা কঠুর ভাবে মেনে চলা।

বর্তমান সময়ে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড একটু বেড়ে যাওয়ায় আমাদের ইসলামিক সংগঠন এবং মসজিদগুলি উপরোক্ত নীতিমালাগুলি নিয়মিত ভাবে মেনে চলা হচ্ছে কি না তা বর্তমান কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় সরকার বিচক্ষণতার সাথে নজরদারী করে আসছে। এমনকি আমাদের প্রতিষ্ঠানে কোন ধরনের রেডিকেলাইজ কর্মকান্ড হচ্ছে কি না তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তাই তাঁদের বেধে দেয়া নীতিমালা মেনে চলতে কোন ব্যত্যয় ঘটলে প্রতিষ্টান বন্ধ করে দেয়ার আশক্ষা থাকে। আপনারা জানেন ইদানিং কালে বৃটেনের বিভিন্ন মসজিদ এবং ধর্মীয় সংগঠন পরিচালনা করতে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তা’ছাড়া বিধিবদ্ধ নীতিমালা মেনে চলার মত আমাদের কমিউনিটির এসব প্রতিষ্টানের পরিচালনা কমিটিতে তেমন অভিজ্ঞতা সম্পন্ন লোকবল পাওয়া খুবই কঠিন।

কাউন্সিল অব মস্ক টাওয়ার হ্যামলেটস এর সহায়তা দানের ধরণ: আমাদের সকল সদস্য ইসলামিক প্রতিষ্ঠানের উপরে বর্ণিত সকল প্রকারে নীতিমালা কিভাবে মেনে চলা যায় তা প্রতিনিয়ত আমারা অভিজ্ঞ পেশাজিবীদের নিয়ে প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করে আসছি।

কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় সরকার চাইল্ড প্রটেকশন পলিসিটি খুবই গুরুত্বের সাথে নজরদারী করে। কারণ আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ, তা বিবেচনায় নিয়ে আমরা এই পলিসিটি অত্যন্ত গুরুত্তের সাথে আমাদের সদস্যদের বা কমিউনিটির সর্বস্তরের লোকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তা মেনে চলতে নিশ্চিত করি। কোন অবস্থাতেই আমরা তার কোন অবহেলা মেনে নিতে পারি না। সে জন্য প্রতিনিয়ত আমরা এই পলিসির উপর কাজ করে আসছি।

পালাক্রমে আমাদের পরিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দ প্রতিটি মসজিদে নিয়মিত ভিজিট করে তাদের সমস্যা চিহ্নিত করে সুরাহার ব্যবস্থা করাই আমাদের প্রধান কাজ। আমাদের কমিটির সদস্যদের কঠোর প্ররিশ্রমের ফলে এ পর্যন্ত আমারা প্রায় সবকটি প্রতিষ্ঠান ভিজিট করতে সক্ষম হয়েছি।

প্রতিটি মসজিদের পরিচালনা কমিটির সদস্যদেরকে উপরোক্ত পলিসিগুলি কিভাবে মেনে চলতে হবে সে জন্য আমরা প্রত্যেকটি পলিসি নিয়ে আলাদা ভাবে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মসজিদে নিয়মিত প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করে, তাঁদের পরিচালনা কমিটির সদস্যদেরকে পরিপূর্ণ করে তুলার কাজ আমরা করে আসছি, যাতে করে তাঁদের কোন প্রকার অবহেলার কারণে আমাদের কমিউনিটির আখাঙ্কিত সেবা গ্রহনে কোন ধরনের ব্যাঘাত না ঘটে।

আমাদের সদস্যভুক্ত প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেক সদস্যদের এবং কর্মকর্তাদের ডিবিএস সার্টিফিকেট কিভাবে নিশ্চিত করা যায় তা নিয়ে নিয়মিত কাজ করছি। আপনারা জানেন প্রতিটি প্রতিষ্টানের সময় সময় পরিচালনা কমিটির কর্মকর্তার রদবদল হয়, যার দরুন এ কাজটি আমাদের খুবই বেশী করতে হয়, যেটি আমরা আমাদের সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সদস্যদের বিনামূল্যে প্রদান করে থাকি।

বিশেষ করে ইসলামিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বেলায় চ্যারিটি কমিশনের সাথে কাজ করা একটি দুরুহ ব্যাপার, তাদের সাথে নিবন্ধন লাভ এবং নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করা একটি কঠিন বিষয়। এ জন্য আমরা আমাদের সদস্যভুক্ত সংগঠনের চ্যারিটির ব্যাপারে যাবতীয় কাজে সহায়তা প্রদান করে আসছি।

তা’ছাড়া বিভিন্ন সময় সাময়িক বিভিন্ন ইস্যুর আসে যেগুলি তাৎক্ষণিক ভাবে আমাদের কমিউনিটির মধ্যে প্রচার বা নিরসনের প্রয়োজন পড়ে, সে ব্যাপারে স্থানীয় সরকার বা উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে, সভা সেমিনার করে তা কমিউনিটিতে ছড়িয়ে দেয়ার কাজও আমরা করে আসছি। আমাদের কমিউনিটির নানামুখী সমস্যার পরামর্শ এবং সমাধানে কাউনসিল অব মস্ক একটি বলিষ্ট ভুমিকা পালন করে আসছে। সে জন্য মুসলমানদের বিষয়ে সাময়িক কোন কিছু ঘটলেই বৃটেনের স্থানীয় সরকার, এমনকি কেন্দ্রীয় সরকার প্রথমেই কাউনসিল অব মস্কের সাথে যোগাযোগে করে তার সুরাহার বা নিরাপত্তার বিষয়ে আলোচনা করে। এক কথায় ইস্টলন্ডনে আমাদের এই প্রতাষ্ঠানটি মুসলমান সমাজের জন্য একটি আইকনিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে এবং সে হিসাবে বিগত ১৮ বছর থেকে কাজ করে আসছে।

আমরা আপনাদের অবগতির জন্য জানাচ্ছি, আমরা প্রথমে আমাদের ৩ জন ফুলটাইম অভিজ্ঞ কর্মচারী দিয়ে উপরে বর্নিত সকল প্রকারের কাজ সম্পন্ন করেছি, আমাদের এইসব কর্মচারীরা মস্ক কাউনসিলের পক্ষ থেকে বহুমুখী কার্যক্রমের মাধ্যমে সেবা প্রদান করতেন যার জন্য স্থানীয় সরকার আমাদের ফান্ড প্রদান করতেন। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় ২০১৫ সালের এপ্রিল থেকে কোন এক অজানা কারণে স্থানীয় সরকার আমাদের এই নিয়মিত ফান্ডিং বন্ধ করে দেন। যার দরুন আমরা আমাদের এই প্রাণপ্রিয় সংগঠনটি আর্থিক সংকটের সম্মুখীন হয়। তখন থেকে আমারা আর্থিক সংকট নিরসনে আমাদের কর্মচারী ছাটাই করতে বাধ্য হই, কিন্তু আমাদের নিয়মিত সেবা প্রদানে কোন ব্যাঘাত করতে দেইনি। আমাদের সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠান এবং সমাজের কিছু বিত্তশালী হৃদয়বান ব্যক্তিবর্গের আর্থিক সাহায্যও অনুদান নিয়ে আমাদের নিয়মিত কার্যক্রম অব্যাহত করে যাচ্ছি।এতে কাউনসিল অব মস্ক স্টাফ সংকটের মধ্যে থেকেও আমাদের পরিচালনা কমিটির সদস্যরা নিয়মিত কাজ করে সেই সংকট মোকাবেলা করে আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখছি,তাতে আমরা সত্যিকার ভাবে আর্থিক সমস্যায় জর্জরিত হয়েও আমাদের কমিউনিটির জন্য কাজ বন্ধ করিনি।

আপানরা জানেন, একটি সমাজকে উন্নত করার দ্বারপ্রান্তে পৌছাতে একটি বিচক্ষণ প্রচার মাধ্যমের প্রয়োজন। আমরা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি, সেই বিচক্ষণতার কাজ, বাংগালী মুসলমান সমাজের জন্য বহিরবিশ্বে আপনারাই পালন করে আসছেন। আমরা আপনাদেরকে নিয়ে গর্ববোধ করি। আপনারাই এই সমাজের আইকন। আজ আপনাদের কাছে আমাদের বিনীত অনুরোধ, আমাদের এই সংকটময় সময়ে বৃটেনে বসবাসরত সর্বস্তরের বাংগালী সামাজের মধ্যে আপনাদের প্রাণপ্রিয় সংগঠনকে বাচিয়ে রাখার জন্য আর্থিক অনুদানের আহব্বান করে একটি মানবিক কাজে অংশ নিয়ে দ্বায়ীত্বশীলের ভুমিকা পালন করবেন।

পরে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিকরা বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করলে সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা তার উত্তর দেন।



সাম্প্রতিক খবর

সিলেটের প্রবীণ কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও সমাজসেবি গোলাম রব্বানি চৌধুরীর ইন্তেকাল

photo লন্ডনবিডিনিউজঃ সিলেটের খুরুমখলা নিবাসি প্রবীণ কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও বিশিষ্ট সমাজসেবি গোলাম রব্বানি গত ১৭ আগস্ট ইন্তেকাল করেন। গোলাম রব্বানী চৌধুরী (আমুদ মিয়া), তার এলাকায় একজন সুপরিচিত ব্যাক্তি ছিলেন। তিনি সামাজিক, রাজনৈতিক বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সস্পৃক্ত ছিলেন। তিনি মানুষের সুখে,দুখে আজীবন পাশে থাকতেন এবং মানুষকে বিভিন্ন ভাবে সাহায্যে, সহযোগিতা করতেন। তার মৃত্যুর সংবাদ

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment