আজ : ০৪:৫৭, নভেম্বর ২২ , ২০১৯, ৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬
শিরোনাম :

হেফাজতে ইসলাম ইউরোপের প্রতিবাদ- বিক্ষোভ সভা


রাসূলের মর্যাদার প্রশ্নে কোন ঈমানদার নিরব থাকতে পারে না

আপডেট:১০:৫২, অক্টোবর ২৩ , ২০১৯
photo
লন্ডনবিডিনিউজ২৪ঃআল্লাহ, রাসুল ও হজরত ফাতিমা রা: এর বিরুদ্ধে কটুক্তির প্রতিবাদে আগত রাসূল প্রেমী জনতার উপর পুলিশের গুলি ও হত্যার প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ আহুত দেশব্যাপী কর্মসূচীর অংশ হিসেবে হেফাজতে ইসলাম ইউরোপ গত ২২ অক্টোবর মঙ্গলবার লন্ডনে এক প্রতিবাদ- বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে । হেফাজতে ইসলাম ইউরোপ ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউরোপের সভাপতি মুফতি শাহ সদরুদ্দিনের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন হেফাজতে ইসলাম ইউ কে’র সভাপতি ও খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কাদির সালেহ । বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন হেফাজতে ইসলাম ইউকে’র অন্যতম নেতা , সালমন লেইন মসজিদের খতীব মুফতি মাওলানা হাফিজ হাসান নূরী চৌধুরী, বায়তুল মামুর মসজিদের খতীব হাফিজ মাওলানা আব্দুল কাদির ও বৃটেনের সর্বদলীয় উলামা সংগঠন বাংলাদেশী মুসলিমস ইউ কে’র মজলিসে কিয়াদাতের সদস্য মাওলানা তায়ীদুল ইসলাম । আলহুদা একাডেমি ইভনিং মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক ও ইউ কে হেফাজত নেতা মাওলানা আনিসুর রহমানের পরিচালনায় এ প্রতিবাদ বিক্ষোভ সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন হেফাজতে ইসলাম ইউ কে’র নেতা মাওলানা ফুজায়েল আহমদ নাজমুল, মাওলানা দিলওয়ার হোসাইন ,মাওলানা আমীরুল ইসলাম ও মাওলানা জয়নুল আবেদীন, গবেষক ও মানবাধিকার কর্মি আমিনুর রশীদ, সাংবাদিক বদরুজ্জামান বাবুল এবং মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব আমিনুর চৌধুরী । প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা আব্দুল কাদির সালেহ ভোলা বুরহানউদ্দিনে হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানান । তিনি মহানবীর বিরুদ্ধে কটুক্তিকারীর এবং ঘটনার পেছনে ইন্ধনকারীদের সনাক্ত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান ।তিনি জানতে চান বাংলাদেশে মুসলমান হওয়া কি কোন অপরাধ ? প্রতিবাদ- বিক্ষোভ সমাবেশে বিনা উষ্কানীতে পুলিশ গুলি চালালো কার হুকুমে? পেছন থেকে ‘গুলি করুন’’গুলি করুন’ বলে কে পুলিসকে হুকুম করছিল ? সে কি ম্যাজিষ্ট্রেট নাকি কোন সুযোগ সন্ধানী দুষ্কৃতিকারী তার নাম প্রকাশ করার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান ।কোনরুপ তদন্ত না করে একজন অজ্ঞাত ব্যক্তির ভাষ্যের উপর ভিত্তি করে হ্যাকিং গুজবের দায় নিরীহ মানুষের উপর চাপিয়ে ঢালাও মন্তব্য করা প্রধানমন্ত্রীর জন্য বে মানান এবং ন্যায় বিচারের পরিপন্থি ।তিন বলেন , আমরা কোর্টের রায়ে হতাশ হয়েছি ।গুলি খেয়ে নিহত ও আহত মানুষের পক্ষে তদন্তের দাবী জানালে কোর্ট এ ব্যাপারে কোনরুপ হস্তক্ষেপ না করার কথা বলায় জনগনের জন্য শেষ আশ্রয়স্থল বলে আর কিছু থাকলো না ।তিনি বলেন , রাসূলের মর্যাদার প্রশ্নে কোন মুসলমান নিরব থাকবেনা ।জুলুম এবং অন্যায্য হত্যার বিচার একদিন হবেই । সভাপতির বক্তব্যে মুফতি শাহ সদরুদ্দিন প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, নবীকে যারা গালি দিলো তাদের বিরুদ্ধে কথা না বলে আপনি কার পক্ষাবলম্বন করলেন ? রাসুলের ইজ্জতের পক্ষে যারা বুরহান উদ্দীনের ঈদগাহ জমায়েত হলো তাদেরকে গুলি চালিয়ে যারা হত্যা করলো এরা নবীর দুশমন। এই দুশমনদের পক্ষাবলম্বন করে মদিনার সনদে দেশ চালাবার কথা যিনি বলেন, তিনি নিজের সাথেই বিশ্বাস ঘাতকতা করছেন ।মুফতি সদরুদ্দিন বলেন, এই সরকার মুসলমানদেরকে আজ বাংলাদেশে বৃহত্তম সংখ্যালঘুতে পরিণত করেছে । তিনি বলেন, ভোলার শহীদানের পক্ষ থেকে বিচারের দাবী আমরা আল্লাহর কাছে জানালাম। কিন্তু ক্ষমতার দাপটে সত্যকে চাপা দেয়ার দায় সংশ্লিষ্ট সকলকে একদিন বহন করতে হবে । অন্নান্য বক্তাগণ শহীদ পরিবারদের ক্ষতিপূরণ , আহতদের যথাযথ চিকিতসা এবং অজ্ঞাত পরিচয় পাঁচ হাজার মানুষের বিরুদ্ধে দায়ের করা ভৌতিক মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবী জানান । (প্রেস বিজ্ঞপ্তি)


সাম্প্রতিক খবর

সমরখন্দের সৌন্দর্যে বিমোহিত ব্রিটিশ বাংলাদেশী সাংবাদিকরা

photo তূর্কি মেয়ের একটি তিলের বিনিময়ে মহাকবি হাফিজ যে দুই নগরী দিতে চেয়েছিলেন, তার একটি সমরখন্দের সৌন্দর্য আর স্থাপত্যশিল্প দেখে বিমোহিত হয়েছেন ব্রিটিশ বাংলাদেশী সাংবাদিকরা। বর্তমানে উজবেকিস্থান সফররত ব্রিটিশ বাংলাদেশী সাংবাদিকরা বুধবার সারাদিন সমরখন্দ ও তার আশেপাশের এলাকা পরিদর্শন করেন। সাপ্তাহিক জনমত এর প্রধান সম্পাদক ও লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সৈয়দ

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment